রাজধানী সুপার মার্কেটে ভয়াবহ আগুন ২০ দোকান পুড়ে ছাই, আহত ৪০

আমাদের নতুন সময় : 21/11/2019

ইসমাঈল ইমু : রাজধানীর টিকাটুলির রাজধানী সুপার মার্কেটে আগুন লেগেছে। বুধবার সন্ধ্যা সোয়া ৫টার দিকে আগুনের সূত্রপাত ঘটে। খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের ২৫টি ইউনিট প্রায় পৌনে দুই ঘন্টা চেষ্টা করে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। অগ্নিকা-ে পুড়ে গেছে ২০টি দোকান। মার্কেটের দোতলায় যে পাশে আগুন লেগেছে সেখানে বেডশিট, কাপড়, টেইলার্সের ৩০-৩৫টি দোকান ছিলো। অল্প সময়ের মধ্যে অন্য ইউনিটগুলোতে আগুন ছড়িয়ে পড়ে। তবে অগ্নিকান্ডের কারণ জানা যায়নি।
ফায়ার সার্ভিস কর্মীরা জানান, প্রাথমিকভাবে আগুনের খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের ১৪টি ইউনিট পাঠানো হয়। ঘটনাস্থল থেকে আরও চাওয়া হলে ৮টি গাড়ি পাঠানো হয়। পরে আরও তিনটি ইউনিট এসে যুক্ত হয়। মার্কেটটি টিনশেডের তাই আগুন নিয়ন্ত্রণে তাদের বেগ পেতে হয়েছে। অভিসার সিনেমা হল সংলগ্ন রাস্তায় যান চলাচল বন্ধ করে দেয় আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা। ঘটনাস্থলের পাশে পুলিশ সদস্যরা রাস্তার মোড়ে অবস্থান নিয়ে যান চলাচল নিয়ন্ত্রণ করেন।
দোতলার এক দোকান মালিক সাইদুল ইসলাম জানান, পরিবহন শ্রমিকদের ধর্মঘটের কারণে অনেক পার্টি আসতে পারেনি। মার্কেটে লোক স্বাভাবিকের চেয়ে কম ছিলো। আগুনের খবর পেয়ে প্রথমে আমরা মার্কেট থেকে ক্রেতাদের বের করার চেষ্টা করি। পরে নিজেরা বের হই। মার্কেটের নিচতলায় ১৭৮৮টি ছোট বড় দোকান রয়েছে। মার্কেটের উত্তর দিকের নিউ রাজধানী সুপার মার্কেটটি কেবল দোতলা। মূলত এই মার্কেটেই আগুন লেগেছে।
প্রত্যক্ষদর্শী এক ব্যবসায়ী জানান, বাথরুম থেকে তিনিই প্রথম আগুন দেখতে পান। এরপর সবাইকে জানান। তার ধারণা, দ্বিতীয় তলার ফোম, বেডশিটের দোকান থেকেই আগুনের সূত্রপাত। সন্ধ্যা সাড়ে ৬টা পর্যন্ত আগুন দোতলাতেই ছিলো বলে জানান তিনি।
বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা কল্যাণ ট্রাস্টের তত্ত্বাবধানে পরিচালিত রাজধানী সুপার মার্কেট ১৯৯৫ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়। মার্কেটটি মূলত টিনশেড। এখানে পোশাক, প্রসাধন সামগ্রী, নিত্যপণ্য, জুয়েলারিসহ বিভিন্ন রকমের সামগ্রীর দোকান রয়েছে। ঢাকার মধ্যবিত্ত ও নিন্ম-মধ্যবিত্তরাই এখানে কেনাকাটা করে থাকেন। মার্কেটটির নিচতলা পাকা হলেও অবৈধভাবে টিনশেড তৈরি করে তা দোতলায় পরিণত করা হয়েছে। সম্পাদনা : ভিক্টর কে. রোজারিও




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]