• প্রচ্ছদ » » পেঁয়াজ সংকট ও পরিবহন শ্রমিক আন্দোলনে আওয়ামী লীগ বিব্রত নয়, বললেন লেনিন, ড. আনু মুহাম্মদের মতে, জবাবদিহিতা নেই বলে সরকার সংকটগুলো গুরুত্ব দিচ্ছে না


পেঁয়াজ সংকট ও পরিবহন শ্রমিক আন্দোলনে আওয়ামী লীগ বিব্রত নয়, বললেন লেনিন, ড. আনু মুহাম্মদের মতে, জবাবদিহিতা নেই বলে সরকার সংকটগুলো গুরুত্ব দিচ্ছে না

আমাদের নতুন সময় : 22/11/2019

আমিরুল ইসলাম : দুর্নীতিবিরোধী অভিযানে আওয়ামী লীগের অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীদের গ্রেপ্তার, বুয়েটের আবরার হত্যা, পেঁয়াজকা-, চাল-ডালসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের মূল্যবৃদ্ধি, লবণ গুজব, নতুন সড়ক আইন সংশোধনের দাবিতে পরিবহন শ্রমিক ও মালিকদের ধর্মঘটÑ আওয়ামী লীগ বা সরকার কি এসব ঘটনায় বিব্রত? জানতে চাইলে লেখক, গবেষক ও রাজনীতিবিদ নূহ-উল-আলম লেনিন বলেন, আওয়ামী লীগ এসব নিয়ে মোটেও বিব্রত নয়। দুর্নীতিবাজ, লুটেরা ও সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে দলমত নির্বিশেষে ব্যবস্থা নেয়া হবে, নির্বাচনী ইশতেহারেই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দুর্নীতিবাজদের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স ঘোষণা করেছিলেন। জিরো টলারেন্সের অঙ্গীকার থেকেই ছাত্রলীগ, যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগের বিরুদ্ধে অভিযান চালানো হয়েছে এবং যারা দুর্নীতির সঙ্গে জড়িত তাদের বিরুদ্ধে অভিযান চালানো হয়েছে এবং অভিযান চলবে। এই অভিযান কেবল আওয়ামী লীগের মধ্যে সীমাবদ্ধ থাকবে না, আওয়ামী লীগের বাইরেও সমাজে যারা দুর্নীতিপরায়ণ মানুষ, প্রশাসনের যারা দুর্নীতি করেন, তাদের বিরুদ্ধেও পর্যায়ক্রমে এই অভিযান পরিচালিত হবে।

সরকারের সব সাফল্যকে প্রশ্নবিদ্ধ করার জন্য কিছু লোক ওঠেপড়ে লেগেছে এবং একটি সিন্ডিকেট কৃত্রিমভাবে কতোগুলো সংকট সৃষ্টি করার চেষ্টা করেছে। লবণ সংকট তার অন্যতম। পেঁয়াজের উৎপাদন কম হয়েছে, এর সুযোগ গ্রহণ করেছে একটা সিন্ডিকেট। পেঁয়াজ মজুদ করতে গিয়ে তারা হাজার হাজার টন পেঁয়াজ নষ্ট করেছে। পেঁয়াজ পচিয়ে ফেলেও দিয়েছে। বিদেশ থেকে পেঁয়াজ আমদানি করায় সংকটের সমাধান হয়েছে। পরিবহন শ্রমিকরা কোনো আইনের আওতায় থাকতে চায় না। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠকের মাধ্যমে তারা ধর্মঘট প্রত্যাহার করেছে। সরকার শান্তিপূর্ণভাবে এই সমস্যা সমাধান করার চেষ্টা করছে। আওয়ামী লীগ সব সংকট কাটিয়ে উঠতে পেরেছে এবং ভবিষ্যতেও এ ধরনের সমস্যা মোকাবেলা করে দেশকে এগিয়ে নেবে।
জাহাঙ্গীরনগর বিশ^বিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের শিক্ষক, অধ্যাপক আনু মুহাম্মদ বলেন, যেসব বিষয়ে জনগণের ভোগান্তি ও দুর্ভোগ হয় সেসব বিষয়ে সরকারের মাথাব্যথা আমরা দেখতে পাই না। সে কারণে পেঁয়াজের দাম বাড়লে না খাওয়ার পরামর্শ দেয়া হয়। রাস্তায় যানজট হলে বলা হয়, গাড়ির সংখ্যা বেড়ে গেছে উন্নয়নের জন্য। জনগণ কোনো অন্যায়ের প্রতিবাদ করলে তাদের ধমক দেয়া হয় বিদ্যুৎ বন্ধ করে দেবো, টাকা দেয়া বন্ধ করে দেবো বলে। মানুষকে তুচ্ছতাচ্ছিল্য করা ও মানুষের সঙ্গে মশকরা করার প্রবণতা সরকারের মধ্যে অনেক বেশি। তার ফলে সাধারণ মানুষ কোনো সমস্যা আক্রান্ত হওয়া, সমস্যা হিসেবে স্বীকার করা এবং সমাধানের জন্য চেষ্টা করার বিষয়টি আমরা দেখতে পাই না। এ কারণে কিছুদিন পর পর মানুষ নতুন নতুন সমস্যায় জর্জরিত হয়। সরকারের এতে কোনো সমস্যা নেই। সরকার তো বলপ্রয়োগের মাধ্যমে ও নানা রকম কৌশলের মধ্যদিয়ে ক্ষমতায় রয়েছে। ভোগান্তিটা হয় আসলে সাধারণ মানুষের।




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]