• প্রচ্ছদ » শেষ পাতা » ৫ বছরে সাড়ে ৮শ ট্রেন দুর্ঘটনায় নিহত শতাধিক বাস্তবায়ন হয় না তদন্ত কমিটির সুপারিশ


৫ বছরে সাড়ে ৮শ ট্রেন দুর্ঘটনায় নিহত শতাধিক বাস্তবায়ন হয় না তদন্ত কমিটির সুপারিশ

আমাদের নতুন সময় : 30/11/2019

খালিদ আহমেদ : বাংলাদেশ রেল বিভাগ বলছে, গত ৫ বছরে রেল দুর্ঘটনা হয়েছে সাড়ে ৮শরও বেশি। এসব দুর্ঘটনায় নিহত হয়েছেন শতাধিক, আহত হয়েছেন প্রায় ৩শ জন। এসব ঘটনার পর নিয়মানুয়ায়ী প্রতিবার গঠন করা হয় তদন্ত কমিটি। কিন্তু সেই তদন্ত কমিটির প্রতিবেদনে কী উল্লেখ থাকে, তা কখনই প্রকাশ করা হয় না। এছাড়া কিছু তদন্ত কমিটির সাথে সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, তারা তাদের প্রতিবেদনে দুর্ঘটনা রোধে কিছু সুপারিশ করেছিলেন, যা রেল কর্তৃপক্ষ বাস্তবায়ন করেনি।
এদিকে চলতি মাসের ১৫ দিনে পর পর তিনটি রেল দুর্ঘটনায় যাত্রীদের মাঝে আতঙ্ক বিরাজ করছে । রাজধানীর কামলাপুর স্টেশন থেকে প্রতিদিন হাজার হাজার যাত্রী দেশের বিভিন্ন স্থানে যাতায়াত করেন, রেল যাত্রাকে যারা সব সময় নিরাপদ মনে করে আসছেন। এখন সেই নিরাপদ বাহনের ওপর তারা আর ভরসা রাখতে পারছেন না। গত ১২ নভেম্বর ঢাকা-চট্টগ্রাম রেলপথের হ্ম ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবা উপজেলার মন্দভাগ রেলওয়ে স্টেশনে চট্টগ্রাম থেকে ছেড়ে আসা ঢাকাগামী আন্ত:নগর ট্রেন তুর্ণা নিশিতা এবং সিলেট থেকে ছেড়ে আসা চট্টগ্রামগামী আন্ত:নগর উদয়ন এক্সপ্রেস ট্রেনের সংঘর্ষে ১৬ জন নিহত এবং শতাধিক নারী-পুরুষ আহত হয়। এর দুইদিন পর সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়ায় রংপুর এক্সপ্রেসের ট্রেনের একটি ইঞ্জিন ও তিনটি বগিতে আগুন লাগে। এছাড়া ওই ট্রেনের ৬টি বগি লাইনচ্যুত হয়। গত ২৩ নভেম্বর টঙ্গী স্টেশনে চট্টলা এক্সপ্রেস ট্রেনের ইঞ্জিনে আগুন লাগে ।
রেলওয়ের মহাপরিচালক মো. শামসুজ্জামান বলেন, রেল দুর্ঘটনারোধে তারা সব সময়ই যাথাযথ পদক্ষেপ নিয়ে থাকেন। দুর্ঘটনা তদন্ত করে দোষীদের চাকুিরচ্যুত করা হয় । আবার অনেককে বদলি অথবা অর্থদ- দেয়া হয়ে থাকে। তিনি বলেন, ১৮৯০ সালের আইন দিয়ে রেল পরিচালিত হয়ে আসছে। এই আইনে মৃত ব্যক্তিদের ১০ হাজার টাকা ক্ষতিপুরণ দেয়ার বিধান রয়েছে । এই বিধানটি পরিবর্তন করে আড়াই থেকে ৩ লাখ টাকা করা হয়েছে । যা বর্তমানে সংসদে অনুমোদনের অপেক্ষায় আছে।
রেলের ১৬টি দুর্ঘটনার প্রতিবেদন পর্যালোচনা করে জানা যায়, এতে ৮ জনকে তিরষ্কার করা হয়েছে। সতর্ক করা হয়েছে ৩ জনকে। ৪ জনের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। ৩ ঘটনায় কেউ দায়ী নয়। ১৮ জনকে ৪শ থেকে ২ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে।
২০১০ সালের ৮ ডিসেম্বর নরসিংদীতে মহানগর গোধুলি ও চট্টলা এক্সপ্রেস ট্রেনের সংঘর্ষ হয় । এতে ১৪ জন নিহত এবং শতাধিক ব্যক্তি আহত হয় । এই ঘটনার তদন্তে অংশ নেয় বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের এক্সিডেন্ট রিসার্স ইনস্টিটিউটের একটি প্রতিনিধি দল । এই প্রতিনিধি দলে সদস্য ছিলেন কাজী মো. সাইফুন্নেয়াজ। তিনি বলেন, এই দুর্ঘটনা নিয়ে আমরা একটি সুপারিশ জমা দিয়েছিলাম। যা বাস্তবায়িত হলে বর্তমান সময়ের দুর্ঘটনাগুলো ঘটতো না । তিনি বলেন, বর্তমানে রেলের সিগন্যালসহ সবকিছু ডিটিজাল করা প্রয়োজন। তিনি অভিযোগ করেন তদন্ত কমিটিগুলো এমন ভাবে গঠন করা হয় যাতে নি¤œপদস্থ কর্মকর্তারা শাস্তি পায়। সম্পাদনা : সমর চক্রবর্তী, আবদুল অদুদ




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]