আদালতের পর্যবেক্ষণ মালিক ও চালকদের আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হতে হবে

আমাদের নতুন সময় : 02/12/2019

মামুন খান : বিচারক রায়ের পর্যবেক্ষণ তুলে ধরে বলেন, পরিবহন সেক্টরে কর্মরত ড্রাইভার হেলপারের খামখেয়ালিপনা ও উদাসীনতার ফলে উদীয়মান মেধাবী ছাত্র-ছাত্রী, এমনকি যুবক-বয়স্ক ব্যক্তিরাও বাসের চাকায় পিস্ট হওয়া থেকে রেহাই পায় না। বর্তমান মামলায় রমিজউদ্দিন কলেজের ২ জন উদীয়মান ছাত্র-ছাত্রী নিহত হওয়ায় এ দেশের সাধারণ মানুষের বিবেককে নাড়া দেয়। দিয়া ও রাজিব নিহত হওয়ার পর বিচারের দাবিতে সেদিন রাস্তায় নেমে আসে সাধারণ মানুষ। পরিবহনের সেক্টরে ড্রাইভার ও হেলপাররা অধিক টাকা উপার্জনের জন্য মানুষের জীবনের প্রতি কোন সম্মান প্রদর্শন না করে হালকা যান চালানোর লাইসেন্স দিয়ে ভারী যান চালিয়ে যত্রতত্র মানুষের উপর তুলে দিয়ে হত্যা করে চলেছে। এ যেন এদেশে পরিবহন সেক্টরে ড্রাইভার হেলপারদের খাম খেয়ালিপনায় মানুষ হত্যা নেশায় পরিনত হয়েছে, যা বন্ধ হওয়া আবশ্যক। গাড়ির মালিকরা অধিক টাকা আয়ের উদ্দেশ্যে গাড়ীর ড্রাইভার ও হেলপাররা অধিক জমা বেধে দেয়ার ফলে তারা দ্রুতগতিতে বিভিন্ন বাস স্টপে আগে যাত্রী তুলতে যাওয়ার জন্য অবৈধ প্রতিযোগিতায় অবতীর্ণ হয়। ফলে প্রতিনিয়ত রাস্তাঘাটে দুর্ঘটনাসহ জীবনহানী ঘটছে। এ ক্ষেত্রে পরিবহন মালিকদের অধিক অর্থ উপার্জনের মানসিকতা পরিহার করা যেমন আবশ্যক তেমনি রাস্তায় নিয়োজিত আইন প্রয়োগকারী সংস্থার উচিত ছিল নিয়মিত ড্রাইভারদের ড্রাইভিং লাইসেন্স নিয়মিত পরীক্ষা করা। তাহলে কেউ হালকা যানের লাইসেন্স নিয়ে ভারী যান চালানোর সুযোগ পেত না।
আদালত পর্যবেক্ষণে আরো বলেন, গাড়ির মালিক পক্ষ হালকা যানের লাইসেন্স দিয়ে কম বেতনে ড্রাইভারদের ভারী যান (বাস) চালানোর কাজে নিয়োগ করেন। ফলে ওই সকল ড্রাইভারদের যোগ্যতা না থাকার পরও ভারী যান চালানোয় দুর্ঘটনা ঘটাচ্ছে। এ ক্ষেত্রে মালিকদের যেমন দায়িত্ব আছে তেমনি গাড়ি চালানোর সময় চালকদেরও আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হতে হবে’। সম্পাদনা : ইকবাল খান




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]madernotunshomoy.com