জনগণের অর্থ কোনো ব্যক্তির নয়,বললেন দুদক চেয়ারম্যান

আমাদের নতুন সময় : 03/12/2019

ইসমাঈল ইমু : সোমবার দুর্নীতি দমন কমিশনের প্রধান কার্যালয়ে ‘ট্রেনিং অন পাবলিক প্রকিউরমেন্ট এন্ড প্রাকটিসেস ফর এসিসি অফিসিয়াল’ শীর্ষক প্রশিক্ষণ কর্মশালার সনদ প্রদান অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।
দুদক চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদ বলেন, দেশের ক্রয় দুর্নীতিই সবচেয়ে আলোচিত বিষয়। প্রায়শই পত্র-পত্রিকায় ক্রয় দুর্নীতির খবর পাওয়া যায়। যা দেশের মানুষের মর্যাদাকে ভুলুণ্ঠিত করে। তাই এ প্রশিক্ষণের মাধ্যমে লব্ধ জ্ঞান অবশ্যই ক্রয় দুর্নীতির অনুসন্ধান বা তদন্তে প্রয়োগ করতে হবে। আর যদি এটার প্রয়োগ না ঘটে তাহলে জনগণের অর্থে পরচিালিত এসব প্রশিক্ষণ ভিত্তিহীন হয়ে যায়।
তিনি বলেন, সম্পূর্ণ অসৎ উদ্দেশ্যে কেবল সরকারি অর্থ আত্মসাতের লক্ষ্যেই অনেক ক্রয় প্রস্তাবে উচ্চ দর প্রাক্কলণ করেন বলে শোনা যায়। এগুলো বন্ধ করতেই হবে। কঠোর নজরদারি, নিখুঁত তদন্ত ,সর্বোপরি প্রসিকিউশনের মাধ্যমে এসব দুর্নীতি নিয়ন্ত্রণ করা হবে। কর্মকর্তাদের উদ্দেশ্যে তিনি আরও বলেন, আপনাদের অঙ্গীকার হবে নিজেরা দুর্নীতি করবো না, কাউকে দুর্নীতি করতে দেব না। আর এজন্যই প্রয়োজন মানসম্মত তদন্ত, মানসম্মত অভিযোগপত্র, সাক্ষ্য-প্রমাণ উপস্থাপন। দুদকের মামলায় শতভাগ সাজা নিশ্চিত করার উদ্দেশ্যে সকলকে কাজ করার আহ্বানও জানান দুদক চেয়ারম্যান ।
অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন সেন্ট্রাল প্রকিউরমেন্ট টেকনিক্যাল ইউনিট-এর মহাপরিচালক মো. আলী নূর, দুদকের প্রশিক্ষণ অনুবিভাগের মহাপরিচালক এ কে এম সোহেল, দুদক পরিচালক শেখ মো. ফানাফিল্যা, মো. মঞ্জুর মোরেশেদ, সহকারী পরচিালক জাহিদ কালাম, উপসহকারী পরিচালক আফনান জান্নাত কেয়া প্রমুখ। আলোচনা শেষে প্রশক্ষণার্থীদের সনদ প্রদান করেন দুদক চেয়ারম্যান। সম্পাদনা : সমর চক্রবর্তী




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]