• প্রচ্ছদ » শেষ পাতা » মিথ্যা ঘোষণায় পণ্য আমদানির মাধ্যমে ১ হাজার ১৯৭ কোটি টাকা পাচার, মাস্টারমাইন্ডসহ গ্রেপ্তার দুই


মিথ্যা ঘোষণায় পণ্য আমদানির মাধ্যমে ১ হাজার ১৯৭ কোটি টাকা পাচার, মাস্টারমাইন্ডসহ গ্রেপ্তার দুই

আমাদের নতুন সময় : 03/12/2019

সুজন কৈরী : সোমবার দুপুরে রাজধানীর বিজয়নগরের মাহাতাব সেন্টার থেকে দিদারুল আলম টিটু ও তার সহযোগী কবির হোসেনকে গ্রেপ্তার করেছে শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তর। আটকরা ১৫ টি মানিলন্ডারিং মামলার এজাহারভুক্ত আসামী।
এ বিষয়ে রাজধানীর কাকরাইলে শুল্ক গোয়েন্দার সম্মেলন কক্ষে সংবাদ সম্মেলনে সংস্থাটির মহাপরিচালক ড. মো. সহিদুল ইসলাম বলেন, গ্রেপ্তার দুইজনসহ পলাতক আসামী আব্দুল মোতালেব ও অন্য সহযোগীরা মেসার্স এগ্রো বিডি এন্ড জেপি, হেনান আনহুই এগ্রো এলসি এবং হেব্রা ব্রাঙ্কো নামীয় ৩টি অস্তিত্বহীন প্রতিষ্ঠান খোলেন। এরপর প্রতিষ্ঠানের নামে মিথ্যা ঘোষণায় পোল্ট্রি ফিড মেশিনারি আমদানির ঘোষণা দিয়ে বিপুল পরিমাণে মদ, সিগারেট, ফটোকপিয়ার মেশিন আমদানি করে শুল্ক ফাঁকি দিয়ে ১ হাজার ১৯৭ কোটি টাকা মানিলন্ডারিং করেছেন। পর শুল্ক গোয়েন্দা কর্তৃপক্ষ গত ৭ নভেম্বর ৪৩১ কোটি ৭৫ লাখ টাকা মানিলন্ডারিংয়ের দায়ে মেসার্স এগ্রো বিডি এন্ড জেপি নামক প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে পল্টন থানায় ৯টি মামলা করে। একইদিন ৪৩৯ কোটি ১২ লাখ টাকা মানিলন্ডারিংয়ের দায়ে হেনান আনহুই এগ্রো এলসি নামক প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে পল্টন থানায় ৬ টি মামলা করে। ১২ নভেম্বর ২৯০ কোটি ৮৯ লাখ টাকা মানিলন্ডারিংয়ের দায়ে হেব্রা ব্রাঙ্কো নামক প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে পল্টন থানায় ৭টি মামলা করে এবং আসামী কবির হোসেনের বিরুদ্ধে ৮ কোটি ৩৬ লাখ টাকা মানিলন্ডারিংয়ের অভিযোগে ৩০ আগস্ট চট্টগ্রাম কাস্টম হাউস চট্টগ্রাম বন্দর থানায় মামলা করে। কবির ওই মামলার ২ নম্বর এজাহারভুক্ত আসামী।
শুল্ক গোয়েন্দার ডিজি জানান, শুল্ক গোয়েন্দা কর্তৃপক্ষ ৩৫ কোটি ২১ লাখ টাকা ২০১৭ সালের ২৭ নভেম্বর পল্টন থানায় একটি মামলা করে। এতে ১২ কন্টেইনারে মদ, সিগারেট ও ফটোকপিয়ার মেশিন আমদানির মাধ্যমে শুল্ক ফাঁকি ও মানিলন্ডারিংয়ে অভিযোগ আনা হয়। এই মামলার সূত্র ধরে অনুসন্ধানে শুল্ক গোয়েন্দা দেখতে পায়, আসামীরা হেনান আনহুই এগ্রো এলসি, মেসার্স এগ্রো বিডি এন্ড জেপি এবং হেব্রা ব্রাঙ্কো নামক অস্তিত্বহীন প্রতিষ্ঠান খুলে মোট ১২১ টি কন্টেইনারে পোল্ট্রি ফিড মেশিনারি আমদানির ঘোষণা দিয়ে বিপুল পরিমাণ মদ, সিগারেট, ফটোকপিয়ার মেশিন আমদানি করে শুল্ক ফাঁকি দিয়ে ১ হাজার ১৯৭ কোটি টাকা মানিলন্ডারিং করেছেন। এর মাস্টারমাইন্ড দিদারুল আলম টিটু। আর তার একান্ত সহযোগী কবির হোসেন এ সংক্রান্ত সকল জাল দলিল প্রস্তুত ও সরবরাহ করেন। ঘটনায় জড়িত অন্য আসামীদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে। সম্পাদনা : সমর চক্রবর্তী




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]