আমি খুব বেশি পেঁয়াজ খাই না, বললেন অর্থমন্ত্রী

আমাদের নতুন সময় : 06/12/2019


এনডিটিভি : পার্লামেন্ট ভবন হোক বা বাইরে, পেঁয়াজ এখন আলোচনার বিষয় হয়ে উঠেছে। কলকাতায় পেঁয়াজের দাম ১৫০ রুপি। বলতে গেলে তা এখন মধ্যবিত্তদের হাতের বাইরে। বিদেশ থেকে পেঁয়াজ আমদানির কথা পর্যন্ত ভাবতে হচ্ছে ভারত সরকারকে। এই রকম সংকটজনক অবস্থায় গত বুধবার সংসদ ভবনে অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারমণের গলায় শোনা গেলে কৌতুকের সুর। তিনি খানিকটা মজা করেই বলেন, পেঁয়াজের দাম বৃদ্ধি পাচ্ছে ঠিকই, কিন্তু তাতে তার ব্যক্তিগত জীবনে খুব একটা সমস্যা নেই, কারণ তার পরিবার পেঁয়াজ-রসুন দিয়ে করা রান্না খুব একটা পছন্দ করে না।
সীতারমণ জানান, আমি খুব বেশি পেঁয়াজ রসুন খাই না, তাই চিন্তার কোনো কারণ নেই। আমি এমন পরিবারের মানুষ যেখানে পেঁয়াজ নিয়ে লোকজনদের খুব বেশি মাথা ব্যথা নেই। প্রসঙ্গত, অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারমণ জানিয়েছেন যে, পেঁয়াজের দাম নিয়ন্ত্রণে আনার জন্য সরকার বেশ কিছু পদক্ষেপ করেছে। এমনকি কীভাবে শস্যভা-ারে তা সুরক্ষিত রাখা যায়, তা নিয়েও আলোচনা চলছে।
২০১৯-২০ আর্থিক বছরের অনুদানের পরিপূরক চাহিদার প্রথম ব্যাচে লোকসভায় যে আলোচনা চলছে তার জবাবে অর্থমন্ত্রী জানিয়েছেন, পেঁয়াজ সংরক্ষণের জন্য কাঠামোগত কিছু পরিবর্তন আনা আবশ্যক, তার জন্য সরকার উপযুক্ত পদক্ষেপ নিতে প্রস্তুত। পেঁয়াজ চাষের ব্যাপারে জমির পরিমাণ কম হওয়াতে উৎপাদনের পরিমাণও কমেছে। কিন্তু কীভাবে পেঁয়াজের উৎপাদন বৃদ্ধি করা যায় সরকার সে বিষয়ে যথেষ্ট সজাগ। পেঁয়াজের দাম নিয়ন্ত্রণে আনার জন্য ন্যূনতম সহায়ক মূল্যের তহবিলের ব্যবহার করা হচ্ছে। ৫৭ হাজার মেট্রিক টনের বাফার স্টক বানানো হচ্ছে। মহারাষ্ট্র ও রাজস্থানের আলোয়ারের মতো স্থান থেকে দেশের অন্যান্য স্থানে পেঁয়াজ সরবরাহ করার চেষ্টা করা হচ্ছে। রেজা




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]