• প্রচ্ছদ » » ভয় একটা ইমোশন, সারভাইভালের জন্য এই ইমোশন বায়োলজিকালিই বিবর্তিত হইছে


ভয় একটা ইমোশন, সারভাইভালের জন্য এই ইমোশন বায়োলজিকালিই বিবর্তিত হইছে

আমাদের নতুন সময় : 07/12/2019

ইরফানুর রহমান রাফিন

‘সাপকে ভয় পাওয়া র‌্যাশনাল কিন্তু সাপের ভয়ে রাস্তায় অজ্ঞান হয়ে পড়ে থাকা হচ্ছে সাপের কবলেই নিজেকে সপে দেওয়ার সমান।’ জনৈক ফেসবুকার যদিও লেখকের আলোচনার কনটেক্সট ভিন্ন, তথাপি মিলিয়ন-স্ট্রং ইরাকি সেনাবাহিনী আইএসের মাত্র ৩,০০০ যোদ্ধারে কেন কনফ্রন্ট করতে না পেরে ইউনিফর্ম খুইলা পালায়া গেছিলো ২০১৪’র জুনে, তার একটা ভালো ব্যাখ্যা এই অসাধারণ লাইনটায় পাওয়া যায়। আপনি যদি বলেন আপনি আইএসরে ভয় পান, দ্যাট ইজ ওকে, আইএসের মতো তারছিঁড়া গ্রæপরে ভয় পাওয়াটাই স্বাভাবিক। ভয় একটা ইমোশন, সারভাইভালের জন্য এই ইমোশন বায়োলজিকালিই বিবর্তিত হইছে, তাই ভয় পাওয়া মানুষের জন্য খুবই স্বাভাবিক। কিন্তু যেইটা কোনোভাবেই স্বাভাবিক না, সেইটা হচ্ছে, আইএসের স্যাভেজারির বিরোধিতা করতে গিয়া মোদি বা নেতানিয়াহু বা এরদোগান বা ট্রাম্প বা পুতিন বা জিংপিং বা হাসিনারে বøাইন্ড সাপোর্ট দিয়ে ‘খোদার প্রেমের শরাব পিয়ে/বেহুঁশ হয়ে রই পড়ে’ স্টেটে চলে যাওয়া। আনফরচুনেটলি বহু কথিত প্রগ্রেসিভ লোক সেইটা করে, এবং সেইটারেই এনকারেজ করে, এই ধরণের লোক সারা দুনিয়ায় আছে। আমি এই ধরণের প্রগতিশীলতাকে প্রবলেমেটিক মনে করি। পাকিস্তানি-ব্রিটিশ র‌্যাডিকাল ইন্টেলেকচুয়াল তারিক আলীর দুর্দান্ত একটা বই আছে, দ্য ক্ল্যাশ অফ ফান্ডামেন্টালিজমস, সেখানে তিনি দেখাইসিলেন বুশ আর বিন লাদেনের বিরোধিতা একইসাথে করা সম্ভব এবং সেটাই সাইন্স। আসুন আমরা সায়েন্স শিখি, আরেকটু ক্রিটিক্যাল হই। ফেসবুক থেকে




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]