• প্রচ্ছদ » » দূষিত বায়ুর কার্বন-মনো-অক্সাইড মানুষের রক্তের সঙ্গে মিশে অক্সিজেন পরিবহনের ক্ষমতা কমিয়ে দেয়


দূষিত বায়ুর কার্বন-মনো-অক্সাইড মানুষের রক্তের সঙ্গে মিশে অক্সিজেন পরিবহনের ক্ষমতা কমিয়ে দেয়

আমাদের নতুন সময় : 08/12/2019

ডা. জাকির হোসেন

বাংলাদেশের প্রধান শহরগুলোর মধ্যে ঢাকার বায়ুতে দূষণের পরিমাণ দিনে দিনে বেড়েই চলেছে। অতি সম্প্রতি এক জরিপে উঠে এসেছে ঢাকার বায়ু দূষণের এক ভয়াবহ চিত্র। এই জরিপে দেখা যায় বায়ু দূষণে ঢাকা ভারতের রাজধানী নয়া দিল্লিকে পেছনে ফেলে শীর্ষস্থানে উঠে এসছে। এই জরিপের তথ্য অনুযায়ী বিশ্বের দূষিত বায়ুর শহরগুলোর মধ্যে আগে ঢাকার অবস্থান ছিলো চতুর্থ এবং নয়া দিল্লি ছিলো প্রথম অবস্থানে। বায়ু দূষণের অন্যতম কারণগুলো হলো লাগামহীনভাবে নিয়ম-নীতির তোয়াক্কা না করে শিল্প ও কলকারখানা স্থাপন করা। ফিটনেসবিহীন গাড়ির বিষাক্ত ধোঁয়া। অতিরিক্ত গাছপালা কেটে বনায়ন ধ্বংস করা। অতিরিক্ত তেজস্ক্রিয় পদার্থের ব্যবহার। তবে মেগাসিটি ঢাকার বর্তমানে বায়ু দূষণের অন্যতম কারণ হচ্ছে নিয়ম না মেনে আবাসন, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসহ বিভিন্ন অবকাঠামো নির্মাণের কারণে ও ঢাকা শহরের বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্পের মাটি খোঁড়াখুঁড়ির কারণে। বিশেষ করে মেট্রোরেল নির্মাণকারী সংস্থা ঢাকা ম্যাস ট্রানজিট কর্তৃপক্ষ যে খামখেয়ালিভাবে পরিবেশ অধিদপ্তরের ছাড়পত্রকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে এই প্রকল্পের কমযর্জ্ঞ এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছে, তাতে নগরবাসীর এখন প্রশ্বাস বন্ধ হয়ে মরে যাওয়ার মতো অবস্থা তৈরি হয়েছে। নিত্যদিন এই পথে যারা জীবিকার সন্ধানে বের হচ্ছেন তাদের দেহের যে ক্ষতি হচ্ছে তা কোনো কিছুর বিনিময়ে ফিরিয়ে দেয়া সম্ভব হবে না। আশ্চর্যজনক হলো এই ক্ষতির বিষয়ে রাষ্ট্র, পরিবেশে অধিদপ্তর, দূষণকারী ম্যাস ট্রানজিট কর্তৃপক্ষ এমনকি এই ভয়াবহ ক্ষতির শিকার পথচারীও অবগত নয়। এই দূষিত বায়ু সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত করছে মানবদেহের ফুসফুসের। এই দূষিত বায়ু অ্যাজমা, হাঁপানি, অ্যালার্জির সমস্যা, নিউমোনিয়া ও শ্বাসতন্ত্রের সংক্রমণ বহুগুণে বাড়িয়ে দেয়। বালুকণার মাধ্যমে ফুসফুসের ¯িøকোসিস নামে রোগ সৃষ্টি হয়, যা ফুসফুসকে শক্ত করে দিয়ে রোগীকে মৃত্যুর কোলে ঠেলে দেয়। দূষিত বায়ুর কার্বন-মনো-অক্সাইড রক্তের সঙ্গে মিশে অক্সিজেন পরিবহনের ক্ষমতা কমিয়ে দেয়। হৃদরোগের ঝুঁকি বাড়ায়। র্দীঘমেয়াদি দূষিত বায়ু ফুসফুসে ক্যান্সার তৈরির অন্যতম কারণ। সর্বোপরি বহু মানুষের অকাল মৃত্যুর কারণ হয়ে পড়ে এই বায়ু দূষণ।
দুর্ভাগ্যজনক হলেও এটা সত্যি আধুনিক এই যুগে উন্নয়নের জন্য জাতির স্বাস্থ্যের দিকটা একেবারেই অবহেলিত রয়ে গেছে। ইদানীং অনেক চিকিৎসক বায়ু দূষণের ক্ষতিকারক দিকটা নিয়ে বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ায় তাদের নিজস্ব মতামত তুলে ধরছেন। তুলে ধরেছেন এসব রোগীদের চিকিৎসা দিতে গিয়ে যেসব অভিজ্ঞতা অর্জন করেছেন সেগুলো। কিন্তু বোঝাতে ব্যর্থ হয়েছেন এর বহুমাত্রিক ভয়াবহতা সম্পর্কে। যেমন বিশেষ করে গভবর্তী নারীর গর্ভের সন্তানের স্বাস্থ্যঝুকিঁ, গভবর্তী হওয়ার জন্য সুস্থ জরায়ু, স্কুলগামী ছোট ছেলেমেয়েদের র্দীঘমেয়াদি স্বাস্থ্যের ক্ষতিকারক দিকগুলো একেবারেই তুলে ধরা সম্ভব হয়নি। লেখক : চিকিৎসক ও কলামিস্ট




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]