• প্রচ্ছদ » প্রথম পাতা » মাবিয়ার কৃতিত্বের দিন ভারোত্তোলনের সঙ্গে সোনার দেখা মিললো ফেন্সিংয়েও


মাবিয়ার কৃতিত্বের দিন ভারোত্তোলনের সঙ্গে সোনার দেখা মিললো ফেন্সিংয়েও

আমাদের নতুন সময় : 08/12/2019

 


আক্তারুজ্জামান : ১৩তম দক্ষিণ এশিয়ান গেমসে শুরুর দু’দিনে ৪টি সোনা জিতেছিলো বাংলাদেশি অ্যাথলেটরা। পরবর্তী টানা চারদিনে রূপা ও ব্রোঞ্জের তালিকা ভারি করলেও মিলছিলো না কাক্সিক্ষত সোনা। কিন্তু গতকাল সপ্তমদিনে সেটা আর হয়নি। হতাশা কাটিয়ে আশার আলো দেখিয়েছে ভারোত্তোলন ও ফেন্সিং। মাবিয়া আক্তার সীমান্ত ও জিয়ারুল ইসলাম সোনা জিতেছেন ভারোত্তোলনে। এর আগে ২০১৬ সালের এসএ গেমসেও সোনা জিতেছিলেন মাবিয়া। বাংলাদেশের প্রথম নারী হিসেবে এসএ গেমসে ব্যাক টু ব্যাক সোনা জিতলেন মাবিয়া।
ভারোত্তোলনে এমন সাফল্যের দিন সোনা এসেছে ফেন্সিং থেকেও। সোনা এনে দিয়েছেন ফাতেমা মুজিব। আগের দিন ফেন্সিং থেকে টানা তিনটি ব্রোঞ্জ জিতেছিলো বাংলাদেশ। আর শনিবার সর্বোচ্চ সাফল্যটা পেয়েছে। তিনটি সোনা ছাড়া গতকাল তিনটি করে রূপা ও ব্রোঞ্জ পেয়েছে বাংলাদেশ। ৭টি সোনা ছাড়াও ২০টি রূপা ও ৫৩টি ব্রোঞ্জসহ বাংলাদেশের মোট পদকসংখ্যা ৮০টি।
গতবারের মতো এবারো ভারোত্তোলন থেকে সোনা এনে দিয়েছেন মাবিয়া। পতাকা গায়ে জড়িয়ে আবেগে কেঁদে ফেলা মাবিয়া এবারও পদকের মঞ্চে উঠেছেন। সেই সোনার পদকটা এবারও কামড়ে উদযাপন করেছেন। এবারের এসএ গেমসে মেয়েদের ভারোত্তোলনে ৭৬ কেজি ওজন শ্রেণিতে সোনা জিতেছেন সীমান্ত। তিনি হারিয়েছেন শ্রীলঙ্কার প্রিয়ান্থিকে।
মাবিয়ার পর ভারোত্তোলনে সোনা আসে পুরুষ ইভেন্ট থেকেও। ছেলেদের ৯৬ কেজি ওজন শ্রেণিতে সোনা জিতেছেন জিয়ারুল ইসলাম। তিনি হারিয়েছেন স্বাগতিক নেপালের বিশাল সিং বিস্টকে। স্ন্যাচে তিন লিফটে জিয়ারুল তোলেন ১৩৫ কেজি। এরপর ক্লিন অ্যান্ড জার্কে তিন লিফটে তোলেন ২৬২ কেজি।
এই বিভাগে ব্রোঞ্জ জেতেন ভুটানের কেনলি গায়েলশেন। শুক্রবার ফেন্সিং থেকে তিনটি ব্রোঞ্জ আসার পর কাল একটি সোনা ও একটি রূপা আসে। কাঠমান্ডুতে ফেন্সিংয়ে মেয়েদের একক সাবরে অর্থাৎ সেভিং ইভেন্টে প্রথম হয়ে সোনা আনেন ফাতেমা মুজিব। সম্পাদনা : ইকবাল খান




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]