• প্রচ্ছদ » » আমাদের একজন মেধাবী সাহসী নেতা প্রয়োজন বললেন ড. মাহবুব উল্লাহ


আমাদের একজন মেধাবী সাহসী নেতা প্রয়োজন বললেন ড. মাহবুব উল্লাহ

আমাদের নতুন সময় : 10/12/2019

আমিরুল ইসলাম : স্বাধীনতার ৪৮ বছর পর বাংলাদেশের লড়াইটা এখন কিসের সঙ্গে? জানতে চাইলে অর্থনীতিবিদ ও রাজনৈতিক বিশ্লেষক ড. মাহবুব উল্লাহ বলেন, আমার দৃষ্টিতে সবচেয়ে কঠিন লড়াই হচ্ছে দেশের সার্বভৌমত্ব রক্ষা করা। আমরা যদি দেশের সার্বভৌমত্ব রক্ষা করতে পারি, নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে পারি, তাহলে গণতান্ত্রিক অধিকারও নিশ্চিত হবে।
তিনি আরও বলেন, আমাদের এখনকার বড় সমস্যা হচ্ছে যারা ক্ষমতায় থাকেন, তারা তাদের ক্ষমতা আর রাষ্ট্রীয় নিরাপত্তা দুটো জিনিসকে একেবারে তালগোল পাকিয়ে দেন। ফলে মানুষ গণতান্ত্রিক অধিকার থেকে বঞ্চিত হয়। কাজেই সামনে আমাদের যে সংগ্রাম করতে হবে তার জন্য হয়তো অনেক বেশি ত্যাগও স্বীকার করতে হবে। দেশের স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্বকে নিরাপদ করার চেষ্টা করতে হবে। আমরা যে বলি দেশের খুব উন্নতি হচ্ছে, এটা ঠিক নয়। আসলে অর্থনীতি ঠিকপথে চলছে না। আমরা ইতোমধ্যে লক্ষ্য করেছি রপ্তানি হার হ্রাস পেয়েছে, এর প্রবৃদ্ধি হ্রাস পেয়েছে। বিভিন্ন ক্ষেত্রে মূল্যস্ফীতির লক্ষণ দেখা যাচ্ছে এবং দেশে প্রচুর শিক্ষিত বেকার রয়েছে। এ দেশে সত্যিকার অর্থে ব্যক্তিগত খাতে তেমন বিনিয়োগ হচ্ছে না। ব্যাংকিং ও আর্থিক খাত বিরাট সংকটে রয়েছে। এই সব কিছু উৎরে যাওয়া অত্যন্ত কঠিন ব্যাপার। এর জন্য দৃঢ়শক্তিসম্পন্ন নেতৃত্ব দরকার। যেই নেতৃত্ব হবে দৃঢ়চিত্ত সৎ এবং সাহসী। শুধু সাহসী হলেই চলবে না নেতৃত্বের মেধা, জ্ঞান থাকতে হবে। জ্ঞান, মেধা, শক্তি, সাহস, সততার সংমিশ্রণে সামনের দিনে নেতৃত্ব নিশ্চিত করা আমাদের জন্য একটা বড় চ্যালেঞ্জ। আমরা যদি এটা নিশ্চিত করতে পারি তাহলে আমরা অনেক সমস্যারই উত্তরণ ঘটাতে পারবো, অতিক্রম করতে পারবো। দেশের প্রাকৃতিক পরিবেশ বিপর্যয়ের মুখে। এ দেশের বায়ু, পানি, সামগ্রিক পরিবেশ খুব দূষিত হয়ে পড়ছে। এটা আমাদের ভবিষ্যৎ ও বর্তমান প্রজন্মের জন্য হুমকিস্বরূপ হয়ে দাঁড়িয়েছে। ঢাকা এখন বিশে^র সবচেয়ে দূষিত শহর। কীভাবে আমরা ভয়ানক দূষণ থেকে রক্ষা পেতে পারি এ ব্যাপারেও আমাদের চিন্তাভাবনা করতে হবে। প্রবৃদ্ধির সঙ্গে পরিবেশকে দূষণমূক্ত করতে না পারলে এর ফল অনেকটা নিরর্থক হয়ে যায়।




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]