• প্রচ্ছদ » সর্বশেষ » ড. অজয় রায় মারা গেছেন, মরদেহ দান করা হবে বারডেমে, তার লেখা কেমব্রিজে পড়ানো হয়, জানালেন সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী


ড. অজয় রায় মারা গেছেন, মরদেহ দান করা হবে বারডেমে, তার লেখা কেমব্রিজে পড়ানো হয়, জানালেন সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী

আমাদের নতুন সময় : 10/12/2019

দেবদুলাল মুন্না : ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক অধ্যাপক ও পদার্থবিজ্ঞানী অজয় রায় গতকাল সোমবার দুপুরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রাজধানীর বারডেম হাসপাতালে মারা গেছেন। তার বয়স হয়েছিল ৮৫ বছর। ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির সভাপতি শাহরিয়ার কবির, তার ছোট ছেলে অনুজিত রায়ের সঙ্গে কথা হয়েছে। অনুজিত জানিয়েছেন, বাবার শেষ ইচ্ছে অনুযায়ী গবেষণার জন্য বারডেম কর্তৃপক্ষকে মরদেহ দান করা হবে।
এর আগে চিকিৎসক ও পরিবারের সদস্যরা জানান, জ্বর ও শ্বাসকষ্ট নিয়ে ২৫ নভেম্বর বারডেম হাসপাতালে ভর্তি হন অধ্যাপক অজয় রায়। ধীরে ধীরে শ্বাসকষ্ট বাড়লে দুইদিন পর তাকে কৃত্রিম শ্বাস দেওয়া শুরু হয়। তিনি দীর্ঘদিন থেকে বার্ধক্যজনিত নানা অসুখে ভুগছিলেন। শাহরিয়ার কবির জানান, সন্তানরা বিদেশে থাকায় অজয় রায়ের মরদেহ আপাতত বারডেম হাসপাতালের হিমঘরে রাখা হয়েছে। মঙ্গলবার সকালে অজয় রায়ের মরদেহ বেইলি রোডের বাসভবনে নিয়ে যাওয়া হবে। সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের উদ্যোগে মঙ্গলবার বেলা ১১টায় কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে সর্বস্তরের মানুষের শ্রদ্ধা নিবেদনের জন্য মরদেহ নেওয়া হবে। অধ্যাপক অজয় রায়ের ছেলে ব্লগার ও লেখক অভিজিৎ রায় ২০১৫ সালের ২৬ ফেব্রুয়ারি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসির উল্টো পাশে জঙ্গিদের হামলায় নিহত হন। এ ঘটনায় সেনাবাহিনী থেকে পালিয়ে যাওয়া মেজর জিয়াসহ ১১ জনের বিরুদ্ধে আদালতে চার্জশিট জমা দেওয়া হয়েছে।
শিক্ষাবিদ সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী বলেন, ‘মৃত্যুর আগে তার ছেলে অভিজিৎ হত্যার বিচার দেখে যেতে পারলেন না। এটাই আফসোস।’ তিনি বলেন, ‘অজয় রায়ের দুটি গবেষণা নোবেল কমিটিতে আলোচিত হয়। তার লেখা কেমব্রিজ ইউনিভার্সিটিতে পড়ানো হয়। দেশিবিদেশি বহু জার্নালে অজয় রায়ের পেপার প্রকাশিত হয়েছে। বাংলাদেশের স্বাধীনতার পর তিনি বাংলাদেশ এশিয়াটিক সোসাইটির জেনারেল সেক্রেটারি পদে ছিলেন। তিনি সম্প্রীতি মঞ্চের সভাপতি, বাংলাদেশ ইতিহাস পরিষদের ভাইস প্রেসিডেন্ট এবং ঘাতক দালাল নির্মুল কমিটির প্রতিষ্ঠাতাদের একজন ছিলেন।’
ড. অজয় রায় ১৯৩৫ সালের ১ মার্চ দিনাজপুরে জন্মগ্রহণ করেন। একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধ এবং যুদ্ধোত্তর বাংলাদেশের প্রায় সব গণতান্ত্রিক ও নাগরিক আন্দোলনের সামনের কাতারে ছিলেন। সম্পাদনা : ইকবাল খান
তিনি ১৯৬৬ সালে ইংল্যান্ডের লিডস বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পিএইচডি ডিগ্রি অর্জন করেন। ১৯৬৭ সালে সেখানেই করেন পোস্ট ডক্টরেট। ১৯৬৭ সালে শিক্ষক হিসেবে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পুনরায় যোগ দেন। ২০১২ সালে পদার্থবিজ্ঞানে একুশে পদক অর্জন করেন অজয় রায়।




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : info@amadernotunshomoy.com