• প্রচ্ছদ » শেষ পাতা » যত্রতত্র পার্কিংয়ের অপরাধে রেকার বিল ও সামান্য জরিমানা করে বোঝানো হচ্ছে নতুন আইনের শাস্তি


যত্রতত্র পার্কিংয়ের অপরাধে রেকার বিল ও সামান্য জরিমানা করে বোঝানো হচ্ছে নতুন আইনের শাস্তি

আমাদের নতুন সময় : 10/12/2019

ইসমাঈল ইমু : নতুন সড়ক আইনে মামলা না হলেও যত্রতত্র পার্কিংয়ের কারণে রেকার বিল নিচ্ছে ট্রাফিক পুলিশ। বাস, মিনিবাস ও প্রাইভেটকারের পাশাপাশি মোটরসাইকেলও রেকারে তুলতে দেখা গেছে। সামান্য অপরাধের কারণেও জরিমানা করা হচ্ছে। তবে নতুন আইনে মামলা শুরু হলে এসব জরিমানা ও মামলায় মোটা অংকের টাকা গুনতে হবে পরিবহন চালক মালিকদের। ডিএমপির ট্রাফিক পুলিশ সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।
ডিএমপির ধানমন্ডি জোনের সিনিয়র সহকারি কমিশনার (ট্রাফিক) আকরাম হোসেন বলেন, ড্রাইভিং লাইসেন্সহ গাড়ির সকল কাগজপত্র ঠিক করতে আগামী জুন পর্যন্ত সময় বেঁধে দেয়া হয়েছে। এ সময়ের মধ্যে নতুন আইনে মামলা করা হচ্ছে না। তবে অবৈধ পার্কিংসহ ছোটখাটো অপরাধে সামান্য জরিমানা করে বোঝানো হচ্ছে এই অপরাধেই বিপুল অংকের টাকা গুনতে হবে। তিনি বলেন, ইতোমধ্যে রাজধানীতে চলমান পরিবহনে অনেকটাই শৃঙ্খলা ফিরেছে। মোটরসাইকেল চালক-আরোহীদের হেলমেট ব্যবহারের প্রবণতা বেড়েছে। এভাবে সকলেই আইন মানলে ট্রাফিক পুলিশের যানবাহন নিয়ন্ত্রণ করতে সুবিধা হবে। পাশাপাশি সাধারণ চালকরাও বিড়ম্বনার শিকার হবেন না বলেন তিনি।
ডিএমপির ট্রাফিক বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, ডিএমপিতে ট্রাফিকের ২৩টি অঞ্চল রয়েছে। মামলা দেওয়ার বিষয়টি খুব সাবধানতার সঙ্গে করা হচ্ছে। প্রতিটি অঞ্চলে একটি করে টিম গঠন করা হয়েছে। প্রাথমিকভাবে এই টিমগুলো মামলা দেয়ার কাজ করছে। ধীরে ধীরে এই কার্যক্রম বাড়ানো হবে। মামলা দেয়ার পস মেশিনগুলো প্রস্তুত হয়ে গেলে পূর্ণাঙ্গভাবে মামলা দেওয়ার কাজ শুরু হবে।
ট্রাফিক কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, নতুন আইনে মামলা ও জরিমানার বিষয়ে পুলিশ সদস্যদের সঙ্গে যাতে জনসাধারণের কোনো ভুল-বোঝাবুঝি না হয়, সে জন্য তারা বেশ কয়েকটি পদক্ষেপ নিয়েছেন। কেউ যখন আইন লঙ্ঘন করছেন, তখন প্রথমত তার ভিডিও চিত্র ধারণ করা হচ্ছে। এরপর তাকে থামিয়ে আইন লঙ্ঘনের বিষয়টি জানানো হচ্ছে। তিনি কীভাবে আইন লঙ্ঘন করেছেন, সেটিও বুঝিয়ে বলা হচ্ছে। মূলত ট্রাফিক পুলিশের প্রতি যে একধরনের অনাস্থা তৈরি হয়েছে, সেটি নিরসনেই এই পদক্ষেপগুলো নেওয়া হচ্ছে।
গত ১ নভেম্বর থেকে আইনটি কার্যকর হলেও পুলিশ এতদিন আইন লঙ্ঘনকারীদের মামলা দেয়া থেকে বিরত ছিলো। নতুন আইন সম্পর্কে জনগণকে সচেতন করতে এই পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছিলো তারা। নতুন সড়ক পরিবহন আইনে বেশির ভাগ ধারার জরিমানা ১০ থেকে ৫০ গুণ বাড়ানো হয়েছে। আগে যেসব ধারায় এক মাস কারাদন্ডের বিধান ছিলো, এখন তা দুই বছর পর্যন্ত হয়েছে। সম্পাদনা: ভিক্টর কে. রোজারিও




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]