• প্রচ্ছদ » শেষ পাতা » রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের বাস্তবায়ন দ্রুতগতিতে এগিয়ে চলছে


রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের বাস্তবায়ন দ্রুতগতিতে এগিয়ে চলছে

আমাদের নতুন সময় : 10/12/2019

শাহীন চৌধুরী : বিদ্যুৎ খাতে দেশের বৃহৎ প্রকল্প রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র। এই প্রকল্পের বাস্তবায়ন প্রক্রিয়া দ্রুত এগিয়ে চলছে । সংশ্লিষ্টরা বলছেন, রূপপুর প্রকল্প দেশের উন্নয়ন-অগ্রগতির জন্য একটি মাইলফলক। সময়মতো নির্মাণ কাজ সম্পন্ন হলে ২ হাজার ৪০০ মেগাওয়াট ক্ষমতাসম্পন্ন প্রথম পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রটি ২০২৩ সালে বিদ্যুৎ উৎপাদন শুরু করবে। খবর সংশ্লিষ্ট সূত্রের।
প্রকল্পটির কাজ উদ্বোধন থেকেই এ প্রকল্পের কাজ দ্রুতগতিতে এগিয়ে চলেছে। অনেক ক্ষেত্রে দেখা যায়, ৩ বছরের কাজ মাত্র এক বছরেই শেষ হয়ে গেছে। এরমধ্যে মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো রূপপুর প্রকল্পের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের থাকার জন্য আবাসন ভবন। প্রতি ফ্লোর ২০ হাজার স্কয়ার ফিটের ৬ ইউনিটের তিনটি ২০ তলা ভবন নির্মাণ করা হয়েছে মাত্র একবছরে। বিশ্লেষকরা বলছেন, এ ধরণের একেকটি ভবন নির্মাণ করেতে কম করে হলেও তিনবছর প্রয়োজন।
সূত্রমতে, জরিমানা থেকে রক্ষা পাওয়াই ভবনগুলোর দ্রুত নির্মাণ কাজ সম্পন্ন করার অন্যতম কারণ। পর্যবেক্ষকরা মনে করেন, বর্তমান সরকারের উন্নয়নের মাইলফলক হয়ে থাকবে রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র।
জানা যায়, ১৯৬১ সালে পাবনার ঈশ্বরদী উপজেলার রূপপুরে এই প্রকল্প বাস্তবায়নের পরিকল্পনা করা হয়। ২০০৮ সালে আওয়ামী লীগের নির্বাচনী ইশতেহারে প্রকল্পটি বাস্তবায়নের অঙ্গীকার করা হয়। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২০১৭ সালের ৩০ নভেম্বর রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের ১ নম্বর ইউনিটের প্রথম কংক্রিট ঢালাই উদ্বোধন করেন।
এই পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র থেকে ৬০ বছর নিরবিচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ পাবে দেশ। এর পেছনে বার্ষিক খরচ হবে মাত্র এক হাজার কোটি টাকা। প্রকল্পটির বাস্তবায়ন হলে দেশের ৬ কোটি মানুষ বিদ্যুতের সুবিধা ভোগ করবে। সম্প্রতি রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের প্রকল্প পরিদর্শন করে সন্তোষ প্রকাশ করেছে জাতীয় সংসদের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটি।
প্রসঙ্গত, রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণ প্রকল্প বাস্তবায়নে মোট ব্যয় ধরা হয়েছে ১ লাখ ১৩ হাজার ৯২ কোটি ৯১ লাখ টাকা। রেকর্ড পরিমাণ ব্যয়ের রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র প্রকল্পটি বাংলাদেশের ইতিহাসে এই প্রথম। প্রকল্প ব্যয়ের ৯০ ভাগ ঋণ হিসাবে দিবে রাশিয়া। ১০ ভাগ প্রদান করবে বাংলাদেশ সরকার। সম্পাদনা : ইকবাল খান




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]