• প্রচ্ছদ » শেষ পাতা » শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস ও মহান বিজয় দিবস উপলক্ষ্যে বাংলাদেশ জাতীয় জাদুঘরে বিশেষ অনুষ্ঠান


শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস ও মহান বিজয় দিবস উপলক্ষ্যে বাংলাদেশ জাতীয় জাদুঘরে বিশেষ অনুষ্ঠান

আমাদের নতুন সময় : 13/12/2019

রাজু আলাউদ্দিন : শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস ও বিজয় দিবস উপলক্ষে বিশেষ কর্মসূচি হাতে নিয়েছে বাংলাদেশ জাতীয় জাদুঘর। ১৪ ডিসেম্বর শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবসে জাদুঘরের সুফিয়া কামাল মিলনায়তনে হবে আলোচনা অনুষ্ঠান। আলোচনা সভায় হিসেবে উপস্থিত থাকবেন মুক্তিযোদ্ধা ও মানবতাবাদী নেত্রী এডভোকেট সুলতানা কামাল, স্বাধীনতা পদকপ্রাপ্ত বীরমুক্তিযোদ্ধা লে. কর্নেল (অব.) কাজী সাজ্জাদ আলী জহির, বীর প্রতীক এবং একাত্তরের শহীদ বুদ্ধিজীবীর কন্যা ডা. নুজহাত চৌধুরী। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করবেন বাংলাদেশ জাতীয় জাদুঘর বোর্ড অব ট্রাস্টিজের সভাপতি আন্তর্জাতিক খ্যাতিস¤পন্ন ফোকলোরবিদ ও বঙ্গবন্ধু চেয়ার অধ্যাপক শামসুজ্জামান খান।
আর মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে জাতীয় জাদুঘর আয়োজন করেছে এক বিশেষ প্রদর্শনীর। ১৬ ডিসেম্বর থেকে ৩১ ডিসেম্বর চলা এই প্রদর্শনীতে স্থান পাবে বঙ্গবন্ধুর স্মৃতি নিদর্শন, আলোকচিত্র, পেইন্টিং এবং বঙ্গবন্ধুর ওপর প্রকাশিত বিভিন্ন গ্রন্থ।
বিজয় দিবস উপলক্ষে ১৬ ডিসেম্বর একটি আলোচনা সভাও হবে। সেদিন বিকাল ৫ টায় কবি সুফিয়া কামাল মিলনায়তনে বিজয়ের গান ও মুক্তিযুদ্ধের গল্প শীর্ষক এই আলোচনা সভায় মুক্তিযুদ্ধের গল্প বলবেন বিশিষ্ট সাংবাদিক, কথাসাহিত্যিক ও বীর মুক্তিযোদ্ধা জনাব হারুন হাবীব। আলোচক হিসেবে উপস্থিত থাকবেন বিশিষ্ট নাট্যজন, বাংলাদেশ টেলিভিশনের সাবেক মহাপরিচালক ও বীর মুক্তিযোদ্ধা জনাব ম. হামিদ, শহীদ জায়া ও শিক্ষাবিদ অধ্যাপক শ্যামলী নাসরিন চৌধুরী এবং সাংবাদিক, লেখক ও একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির সভাপতি জনাব শাহরিয়ার কবির। অনুষ্ঠানের সভাপতিত্ব করবেন বাংলাদেশ জাতীয় জাদুঘর বোর্ড অব ট্রাস্টিজের সভাপতি আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন ফোকলোরবিদ ও বঙ্গবন্ধু চেয়ার অধ্যাপক শামসুজ্জামান খান।
আয়োজিত এসব কর্মসূচির বিষয়ে বাংলাদেশ জাতীয় জাদুঘরের মহাপরিচালক মো. রিয়াজ আহম্মদ বলেন, শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস এমন একটি বিশেষ দিবস যে দিন বাংলাদেশ তথা বাঙালি জাতি গভীর শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করে বাংলার শ্রেষ্ঠ সন্তানদের। ১৯৭১ সালের ১০ থেকে ১৪ই ডিসেম্বর পাকিন্তানি সেনাবাহিনী বাংলাদেশের প্রথম শ্রেণীর সকল বুদ্ধিজীবীকে হত্যা করে। এই নৃশংস হত্যাকান্ডে বাংলাদেশীদের মধ্যে রাজাকার, আল-বদর, আল-শামস বাহিনীর লোকেরা পাকিস্তান সেনাবাহিনীকে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে সহযোগিতা করেছিল। প্রতি বছরের মতো এ বছরও বাংলাদেশ জাতীয় জাদুঘর দিবসটি যথাযোগ্য মর্যাদার সাথে পালন করবে। সম্পাদনা: মাসুদ কামাল।




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]