• প্রচ্ছদ » সাবলিড » নাগরিকত্ব আইন ইস্যুতে এবার উত্তাল পশ্চিমবঙ্গ ও মেঘালয়, শিলংয়ে লাঠিচার্র্জ, দিল্লিতে সংঘর্ষ


নাগরিকত্ব আইন ইস্যুতে এবার উত্তাল পশ্চিমবঙ্গ ও মেঘালয়, শিলংয়ে লাঠিচার্র্জ, দিল্লিতে সংঘর্ষ

আমাদের নতুন সময় : 14/12/2019

আসিফুজ্জামান পৃথিল : প্রায় গোটা পশ্চিমবঙ্গেই ছড়িয়ে পড়ছে বিক্ষোভ। হাওড়ার উলুবেড়িয়া, মুর্শিদাবাদের বেলডাঙা, বহরমপুর-সহ বিভিন্ন এলাকায় অশান্তি শুরু হয়েছে। বিক্ষোভ হয়েছে কলকাতাতেও। কোথাও রেললাইন, কোথাও জাতীয় সড়ক অবরোধ করে আগুন জ্বালিয়ে দিয়েছেন বিক্ষোভকারীরা। রাজ্যে শান্তি বজায় রাখার আহ্বান জানিয়েছেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি। আইনকে সম্মান জানানোর আহ্বান জানিয়েছেন গভর্নর জগদীপ ধনখড়।আনন্দবাজার
হাওড়ার উলুবেড়িয়া এবং মুর্শিদাবাদের বেলডাঙার পরিস্থিতি সবচেয়ে উত্তপ্ত। এ দিন প্রথমে ৬ নম্বর জাতীয় সড়ক অবরোধ করা হয় উলুবেড়িয়ায়। কয়েক হাজার বিক্ষোভকারী রাস্তা আটকে আগুন জ্বালিয়ে দেন। পরে অবরোধ শুরু হয়েছে রেল লাইনে। হাওড়া-খড়্গপুর লাইনে ট্রেন চলাচল সম্পূর্ণ বন্ধ হয়ে গেছে। হাওড়া থেকে দক্ষিণ ভারতের দিকে যাওয়া বিভিন্ন দূরপাল্লার ট্রেন আটকে পড়েছে। হাওড়ায় ফেরার পথেও আটকে রয়েছে একাধিক দূরপাল্লার ট্রেন। দক্ষিণ-পূর্ব রেলের ওই লাইনে লোকাল ট্রেন সেবাও বন্ধ হয়ে গিয়েছে। রেল লাইনের উপরে আগুন জ্বালিয়ে দিয়েছেন বিক্ষোভকারীরা। পাথর ছুড়ে হামলা চালানো হচ্ছে আটকে থাকা ট্রেনগুলিতে। একটি ট্রেনের চালক এবং এক রেল পুলিশ কর্মী হামলায় আহত হয়েছেন বলে জানা গিয়েছে। আটকে পড়া যাত্রীরা জানিয়েছেন, তাদের অনেকেও আহত হয়েছেন।
মুর্শিদাবাদের বেলডাঙাও শুক্রবার সকাল থেকেই উত্তপ্ত। জাতীয় সড়ক এবং রেললাইনে অবরোধ চলছে বেলডাঙায়। সেখানেও রেললাইনে আগুন জ্বালিয়ে দেওয়া হয়েছে। জাতীয় সড়ক থেকে পুলিশ অবরোধ হঠানোর চেষ্টা করতেই রণক্ষেত্রের চেহারা নেয় গোটা এলাকা। ফলে অবরোধও সরানো যায়নি বলে জানা যাচ্ছে। শিয়ালদহ-লালগোলা লাইনে ট্রেন চলাচল বিপর্যস্ত।মুর্শিদাবাদের জেলা সদর বহরমপুরেও গোলমাল ছড়িয়েছে বলে জানা গিয়েছে। সেখানেও জাতীয় সড়ক অবরোধ হয়েছিল। পরে অবশ্য অবরোধ উঠে যায়। তবে জেলার আরও উত্তরে উমরপুরে পরিস্থিতি উত্তপ্ত বৃহস্পতিবার থেকেই। পার্শ্ববর্তী জেলা বীরভূম থেকেও অবরোধ বিক্ষোভের খবর আসতে শুরু করেছে।
পশ্চিমবঙ্গের এডিজি রেল অধীর শর্মা বলেন, ‘উলুবেড়িয়াতে কেবিন লক্ষ্য করে পাথর ছোড়ার ঘটনা ঘটেছে। লাইনে টায়ার জ্বালানো হয়। দুটো ট্রেন আটকে রয়েছে ওই স্টেশনে। হাওড়া এবং খড়গপুরের রেল পুলিশ সুপার বাহিনী নিয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছছেন। বেলডাঙাতেও রেললাইনের উপর টায়ার জ্বালানো হয়। তবে কোথাও কেউ আহত হননি বলেই জানতে পেরেছি।’ কলকাতার পার্ক সার্কাস এলাকাও উত্তপ্ত। পার্ক সার্কাস সেভেন্ট পয়েন্ট অবরোধ করে বিক্ষোভ দেখান কয়েকশো লোক। রাস্তায় টায়ার জ্বালানো হয়। রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি অশান্তির বিরুদ্ধে বার্তা দিয়েছেন। রাজ্যবাসীর উদ্দেশে তার আহ্বান, বাংলায় শান্তি বহাল রাখুন। সিএবি-র প্রতিবাদ করতে হলে গণতান্ত্রিক উপায়ে তা করার পরামর্শ দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী।
এদিকে শুক্রবার মেঘালয়ে কারফিউ জারি করা হয়েছে। আসামের পাশর্^বর্তী রাজ্যটিতে শুক্রবার পরিস্থিতির অবনতি ঘটে। নামানো হয় সিআরপিএফ। পরে পরিস্থিতি সামলানো না গেলে জারি হয় কারফিউ। উদ্ভূত পরিস্থিতিতে বন্ধ হয়ে গেছে ডাউকি-তামাবিল বন্দর। ফলে রাজ্যটির মূল বাণিজ্য কার্যক্রমই বন্ধ।
আসামে পুলিশের গুলিতে মারা গেছেন ৫ জন। স্থানীয় সংবাদমাধ্যম সূত্রে জানা গিয়েছে, গুয়াহাটির লালুঙ গাঁওতে এ দিন বিক্ষোভ সামাল দিতে গিয়ে আন্দোলনকারীদের সঙ্গে খ-যুদ্ধে জড়িয়ে পড়ে পুলিশ। উত্তেজিত জনতাকে থামাতে গিয়ে গুলি চালায় তারা। তাতেই পাঁচ জন আহত হন। তড়িঘড়ি হাসপাতালে নিয়ে গেলে সেখানে মৃত্যু হয় ওই ৫ জনের।
দিল্লিতে জামিয়া মিলিয়া ইসলামিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষের ঘটনাও ঘটেছে বলে জানিয়েছে এনডিটিভি। বিতর্কিত এ সিএবি আইনের বিরুদ্ধে উত্তাল ভারতের উত্তরপূর্বের বেশ কয়েকটি রাজ্যে ইন্টারনেট ও মোবাইল পরিসেবা বন্ধ রাখা হয়েছে। শুক্রবার সকাল ১০টার দিকে কর্তৃপক্ষ মেঘালয়ে ১২ ঘণ্টার জন্য কারফিউ তুলে নিলে হাজার হাজার মানুষ রাস্তায় নেমে আসে। বিক্ষোভকারীরা রাজ্য ভবনের কাছে পুলিশকে লক্ষ্য করে পাথর ছুড়লে সংঘর্ষ বেধে যায় বলে স্থানীয় গণমাধ্যমগুলো জানিয়েছে। মোবাইলে তোলা ভিডিওতে পুলিশের লাঠিচার্জ ও কাঁদানে গ্যাসে আহত কয়েকজনকে শিলংয়ের সিভিল হাসপাতালে নিয়ে যেতে দেখা গেছে বলে জানিয়েছে এনডিটিভি। সিএবির প্রতিবাদে শুক্রবার দিল্লিতে পার্লামেন্ট ভবন অভিমুখে বিক্ষোভের ডাক দিয়েছিল জামিয়া মিলিয়া ইসলামিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। দুপুরে তারা মিছিল নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস ছেড়ে বাইরে বের হতে চাইলে পুলিশের বাধার মুখে পড়ে। দুই পক্ষের সংঘর্ষে গণমাধ্যমকর্মীরাও আহত হয়েছে বলে খবর পাওয়া গেছে। পুলিশ পরে অর্ধশতাধিক বিক্ষোভকারীকে আটকের খবর নিশ্চিত করেছে। বিশ্ববিদ্যালয় ও এর আশপাশের এলাকায় বড় জমায়েতে বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়েছে। সম্পাদনা : ইকবাল খান




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]