• প্রচ্ছদ » লিড ১ » নিরঙ্কুস জয় পেয়ে ক্ষমতায় আবারো বরিস রানির কাছে সরকার গঠনের অনুমতি প্রার্থনা


নিরঙ্কুস জয় পেয়ে ক্ষমতায় আবারো বরিস রানির কাছে সরকার গঠনের অনুমতি প্রার্থনা

আমাদের নতুন সময় : 14/12/2019

আসিফুজ্জামান পৃথিল : এই বিশাল জয়ের মাধ্যমে পার্লামেন্টে বিপুল সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেলো কনসারভেটিভরা। বিশ্লেষকরা বলছেন, এর মাধ্যমে বরিসের আগাম নির্বাচনের মিশন আংশিকভাবে সফল হলো। বিবিসি, ডেইলি মেইল, গার্ডিয়ান।
বিবিসির রাজনৈতিক সংবাদদাতা ক্রিস মেসন বলছেন, এই ফলাফল একটা অখ- দেশ হিসাবে যুক্তরাজ্যের টিকে থাকার ওপর একটা চাপ তৈরি করবে। ব্রিটিশ পার্লামেন্টে স্কটল্যান্ডের জন্য নির্ধারিত যে ৫৯টি আসন রয়েছে তার ৮১ শতাংশতেই সেখানকার প্রধান দল এসএনপি জিতেছে। এরপর আছে উত্তর আয়ারল্যান্ড। এই প্রথমবারের মত, জাতীয়তাবাদী দলগুলো, ব্রিটেনের সঙ্গে থাকতে চায় এমন দলগুলোর থেকে বেশি আসন পেয়েছে। এটা এখন সবাই জানে যে ইউরোপ ছাড়ার জন্য প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন যে ব্রেক্সিট চুক্তি করেছেন, তাতে ইইউর সঙ্গে উত্তর আয়ার্ল্যা-ের যে সম্পর্কের রূপরেখা দেয়া হয়েছে তা যুক্তরাজ্যের অন্যান্য অংশের থেকে আলাদা। বরিস জনসন প্রধানমন্ত্রিত্ব গ্রহণের সময় নিজেকে বর্ণনা করেছেন অখ-তার পক্ষের মন্ত্রী হিসাবে। এবং সেটা তিনি করেছেন সঙ্গত কারণেই অর্থাৎ ব্রিটেন ভেঙে যেতে পারে এমন আশংকা থেকেই। কাজেই ব্রিটেনকে একসঙ্গে রাখার চাপটা খুবই বাস্তব।

২০১৭ সালের নির্বাচনের চেয়ে ৪৭টি আসন বেশি পেয়েছে কনসারভেটিভরা। তাদের কর্তমান আসন ৩৬৪। লেবার পার্টির আসন কমেছে ৫৯টি। তাদের বর্তমান আসন ২০৩টি। এসএনপির ১৩টি আসন বেড়ে হয়েছে ৪৮টি। লিবারেল ডেমোক্রেটদের ১টি আসন কমে বর্তমানে ১১টি। ডিইউপির ২টি আসন কমে ৮টি। আর অন্যান্য প্রার্থীদের আসন ১৫টি।
নির্বাচনে বিজয়ের বিষয়ে নিশ্চিত হয়ে রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথের সঙ্গে দিখা করতে বাকিংহাম প্যালেসে যান বরিস জনসন। তাতে স্বাগত জানাতে বাকিংহামে বাজানো হয় বিশেষ ব্যান্ড। সেখানে গিয়ে রানিকে অভিবাদন জানিয়ে সরকার গঠনের অনুমতি চেয়েছেন বরিস। রানি তাকে মৌখিক অনুমতি দিয়েছেন। এরপরই আবারও ১০ নম্বর ডাউনিং স্ট্রিটে ফিরে আসেন বরিস জনসন। সম্পাদনা : ইকবাল খান

 




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]