• প্রচ্ছদ » » মহিউদ্দিন আহমেদ বললেন, ভারত সফর বাতিল করে পররাষ্ট্র ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী যথার্থ কাজ করেছেন


মহিউদ্দিন আহমেদ বললেন, ভারত সফর বাতিল করে পররাষ্ট্র ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী যথার্থ কাজ করেছেন

আমাদের নতুন সময় : 14/12/2019


আমিরুল ইসলাম : ভারতের নাগরিকত্ব আইন নিয়ে ভারত-বাংলাদেশ সম্পর্কে কিছুটা অস্বস্তি তৈরি হয়েছে। এরই মধ্যে পররাষ্ট্রমন্ত্রী এবং স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী তাদের ভারত সফর বাতিল করেছেন। তাদের এই পদক্ষেপকে কীভাবে দেখছেন জানতে চাইলে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সাবেক সচিব মহিউদ্দিন আহমেদ বলেন, পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর ভারত সফর বাতিল করাকে আমি সম্পূর্ণ সমর্থন জানাই। ভারত সফর বাতিল করে তারা একটা যথার্থ কাজ করেছেন।
তিনি বলেন, ভারত কেবল আমাদের নানাভাবে চাপ দিয়ে যাচ্ছে। ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ বাংলাদেশিদের তেলাপোকা হিসেবেও বর্ণনা করেছেন। এগুলো কোনো স্বাধীন সার্বভৌম দেশের নাগরিক হিসেবে মেনে নিতে পারি না। আশা করি ভারত সরকার পররাষ্ট্রমন্ত্রী এবং স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সফর বাতিলের মাধ্যমে একটা মেসেজ পাবে যে, বাংলাদেশ সবকিছু নীরবে ও প্রতিবাদ ছাড়া গ্রহণ করবে না। সম্পাদনা: মাসুদ কামাল।
ভারতে নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন জিন্নার দ্বিজাতি তত্ত্বের প্রতিফলন, প্রতিবাদে পদত্যাগ করছেন পুলিশ কর্মকর্তা, সাবেক আইএএস কর্মকর্তারা জানাচ্ছেন, এ আইন রদের জন্য তারা ‘মুসলমান’ হবেন
দেবদুলাল মুন্না: ভারতে লোকসভার পর রাজ্যসভায় নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল বা ক্যাব ( সিএবি) পাশ হওয়ার পর এখন আইনে রুপ নিয়েছে দেশটির রাষ্ট্রপতির অনুমোদনের মাধ্যমে। এতে দেশটির রাজনৈতিক ভবিষ্যৎও বদলে যেতে চলেছে। দেশভাগের সময় মোহাম্মদ আলী জিন্নার দ্বিজাতি তত্ত্ব নতুন করে প্রবর্তনের অভিযোগ উঠেছে ক্ষমতাসীন দল বিজেপির বিরুদ্ধে। ভারত রাষ্ট্রের বাহাত্তর বছরের ইতিহাসে এটিই হতে যাচ্ছে প্রথম আইন যেখানে ধর্মের ভিত্তিতে অনেকে সুবিধা পেতে যাচ্ছেন এবং একটি বিশেষ ধর্মের অনুসারী হওয়ায় অনেকে সে সুবিধা থেকে বঞ্চিত হবেন। এ আইন অনুযায়ী মুসলমানদের বাদ দিয়ে বাংলাদেশ, পাকিস্তান এবং আফগানিস্তান থেকে ভারতে চলে আসা হিন্দু এবং অন্যান্য ধর্মাবলম্বী মানুষদের ভারতের নাগরিকত্ব দেওয়া যাবে।
মুসলিমবিরোধী বিতর্কিত এ বিলের বিরোধিতা করে গত বৃহস্পতিবার চাকরি থেকে অব্যাহতির জন্য পদত্যাগপত্র দিয়েছেন মহারাষ্ট্রের আইপিএস অফিসার আবদুর রহমান। এ বিল পাসের মাধ্যমে সংবিধানের মৌলিক অধিকার ক্ষুন্ন হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন ১৯৯৯ ব্যাচের এ আইপিএস অফিসার। আবদুর রহমান জানান, সংবিধানের ১৪, ১৫ এবং ২১ অনুচ্ছেদ লঙ্ঘন করছে নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল। ধর্মের ভিত্তিতে নাগরিকত্ব দেয়া এ দেশের ধর্মনিরপেক্ষ ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন করে। আবদুর রহমান জি নিউজকে বলেন, ওই বিলের ব্যাখ্যা করতে ইতিহাস বিকৃত করছেন অমিত শাহ। আগামী আগস্টে স্বেচ্ছা অবসরের আবেদন জানিয়েছেন আবদুর রহমান। এখনও পর্যন্ত তার ওই আবেদনে সাড়া মেলেনি বলে জানা যায়।
শুধু তিনিই নন, বিজেপির সাবেকমন্ত্রী হুমায়ুন কবীর বলেন, ‘মুর্শিদাবাদের মানুষ আমার ভালবেসে পাশে থেকেছেন। কিন্তু নাগরিকত্ব বিল সেই সব মানুষের স্বার্থে খাঁড়ার মতো নেমে আসছে। তাই বিজেপিতে আর থাকছি না।’ সাবেক আইএএস অফিসার এবং মানবাধিকার কর্মী হর্ষ মান্দার গত বুধবার বলেন, পার্লামেন্টে নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল পাশ হলে তিনি নিজেকে সরকারিভাবে মুসলিম বলে ঘোষণা করবেন। এখই সঙ্গে জাতীয় নাগরিকপঞ্জী (এনআরসি)-র জন্য প্রয়োজনীয় নথিপত্রও তখন তিনি দেবেন না। এক টুইটে তিনি বলেন, ‘শেষ পর্যন্ত আমি দাবি করব, নথিহীন মুসলমানদের যে শাস্তি দেওয়া হচ্ছে, আমাকেও তাই দেওয়া হোক। আমি নাগরিকত্ব প্রত্যাহার করব। এই অসহযোগ আন্দোলনে যোগ দিন।’ এর আগে ইন্ডিয়া টুডে’কে দেওয়া এক সাক্ষাতকারে তিনি বলেন, “বিজেপির গেমপ্ল্যান হল প্রথমে মুসলিম ছাড়া সমস্ত ধর্মসম্প্রদায়ের লোকদের সুরক্ষা দেওয়া। এটি দ্বিজাতি তত্ত্বকেই ফিরিয়ে আনা। দিল্লিতে বসবাসরত সাবেক আইএএস অফিসার ও মানবাধিকার কর্মী অনুপ দত্ত গতকাল শুক্রবার হিন্দুস্তান টাইমসকে বলেন, ‘এ সাম্প্রদায়িক রাষ্ট্রে আমি সংখ্যালঘু মুসলমান হবো। এমন ভারত আমরা স্বপ্নেও কল্পনা করিনি।’ একই কথা বলেন গুয়াহাটিতে বসবাসকারী সাবেক আইএএস অফিসার উপায়ন পান্ডে। তিনি বলেন, ‘এ আইনের বিরোধীতা করার আন্দোলনে সামিল হোন। আমাদের ‘মুসলমান’ হতে বাধ্য করবেন না মোদীজি।’ আসামের শিলচরে বসবাসকারী আইএএস অফিসার আশীষ রাওয়াল বলেন, ‘এই আইন রদ করার জন্য আমার মতো অনেকেই মুসলমান হবে। কারণ ভারত সবার। কোনো নির্দিষ্ট ধর্মীয় জাতি গোষ্ঠীর নয়।’ সম্পাদনা : ইকবাল খান




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : info@amadernotunshomoy.com