সংখ্যালঘুদের অধিকার রক্ষায় সচেষ্ট হতে ভারতকে আহ্বান জানালো যুক্তরাষ্ট্র

আমাদের নতুন সময় : 14/12/2019


আসিফুজ্জামান পৃথিল : এবার ভারতকে কড়া বার্তা দিলো যুক্তরাষ্ট্রের স্টেট ডিপার্টমেন্ট। সংবিধান এবং গণতান্ত্রিক মূল্যবোধ মেনে দেশের সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের অধিকার রক্ষায় মোদী সরকারকে সচেষ্ট হওয়ার পরামর্শ দিয়েছে তারা। এই পরামর্শকে ভারতের উদ্দেশে কড়া বার্তা বলে মনে করছে কূটনৈতিক মহল। দ্য হিন্দু
বৃহস্পতিবার মার্কিন স্টেট ডিপার্টমেন্টের মুখপাত্র বলেন, ‘নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল ঘিরে কী কী ঘটছে, সে দিকে নজর রেখেছি আমরা। ধর্মীয় স্বাধীনতা এবং সকলের সমানাধিকারই আমাদের দুই গণতন্ত্রের মৌলিক নীতি। ভারতের কাছে মার্কিন সরকারের আর্জি, সংবিধান এবং গণতান্ত্রিক মূল্যবোধের কথা মাথায় রেখে তারা যেনো দেশের ধর্মীয় সংখ্যালঘুদের অধিকার রক্ষা করে।’ শুরু থেকেই এই বিলের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানিয়ে আসছে মার্কিন কংগ্রেসের একটি অংশ। জাতীয় নাগরিকপঞ্জির (এনআরসি) পর দেশের সংখ্যালঘুদের লক্ষ্য করে উদ্দেশ্যপ্রণোদিত ভাবে মোদী সরকার নাগরিক সংশোধনী বিল এনেছে বলে দাবি তাদের। তা নিয়ে সপ্তাহের শুরুতেই নরেন্দ্র মোদী-অমিত শাহদের বিরুদ্ধে সরব হয় মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের আন্তর্জাতিক ধর্মীয় স্বাধীনতা সংক্রান্ত কমিশন (ইউএসসিআইআরএফ)। তারা জানায়, নাগরিকত্ব দেওয়ার ক্ষেত্রে ধর্মীয় মানদ- বেঁধে দেওয়ার সিদ্ধান্ত অত্যন্ত বিপদজনক। পার্লামেন্টের দুই কক্ষে বিলটি পাশ হলে অমিত শাহ-সহ দেশের শীর্ষস্থানীয় নেতাদের উপর নিষেধাজ্ঞা চাপানো উচিত বলে, মার্কিন স্টেট ডিপার্টমেন্টের কাছে সুপারিশও করে তারা।
সেসময় ইউএসসিআইআরএফ-এর সুপারিশকে বিশেষ গুরুত্ব দেয়নি ভারত। বরং তাদের মন্তব্য পক্ষপাতদুষ্ট বলে পাল্টা অভিযোগ তোলা হয় দেশুটর পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের পক্ষে। টুইটারে একটি বিবৃতি প্রকাশ করে মুখপাত্র রবীশ কুমার জানান, নাগরিকত্ব সংক্রান্ত তথ্য তৈরি করার অধিকার রয়েছে প্রত্যেক দেশের। তার জন্য বিভিন্ন নীতির মাধ্যমে বিশেষ ক্ষমতা প্রয়োগেরও অধিকার রয়েছে। তার পরেই রাজ্যসভায় ওই বিলটি পাশ করিয়ে নেওয়া হয়। পরে রাষ্ট্রপতি অনুমোদনের মাধ্যমে এটি এখন আইনে পরিণত হয়েছে। সম্পাদনা : ইকবাল খান




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]