• প্রচ্ছদ » শেষ পাতা » পরিত্যক্ত বর্জ্য দিয়ে প্লাস্টিকের ইট তৈরী করলো ভারতীয় শিক্ষার্থীরা


পরিত্যক্ত বর্জ্য দিয়ে প্লাস্টিকের ইট তৈরী করলো ভারতীয় শিক্ষার্থীরা

আমাদের নতুন সময় : 15/12/2019

মশিউর অর্ণব : একজন ইঞ্জিনিয়ারিং পড়ুয়া ভারতীয় ছাত্র (অভিষেক ব্যানার্জি) যখন প্রথমবার একটি ঐতিহ্যবাহী ইটভাটা পরিদর্শনে গিয়েছিল, তখন সেখানকার সামগ্রিক পরিবেশ তাকে বিস্মিত করে। অভিষেক ব্যানার্জি বলেন, আমরা দেখলাম সেখানে কর্মরত শ্রমিকদের সাথে খুবই অমানবিক আচরণ করা হচ্ছে। পাশাপাশি সেখানে কাজের পরিবেশ ছিলো খুবই মানবেতর ও নি¤œমানের। শ্রমিকরা সেখানে কোনোরকম যন্ত্রপাতি ছাড়াই খালি হাতে মাটি খুড়ছিলো। সিএনএন।
ভারতের প্রায় ১,৪০,০০০ ইটভাটাকে বেশকিছু পরিবেশগত মূল্যও চুকাতে হয়। বায়ুমন্ডলে প্রচুর ধুলো, ক্ষতিকর সালফার ডাই অক্সাইড, কার্বন ডাই অক্সাইড ছড়ানোর পাশাপাশি এটি ফসল, বন্যপ্রাণী ও জীববৈচিত্রেরও ব্যাপক ক্ষতিসাধন করে থাকে। এক গবেষণায় দেখা গেছে, ভারতের ইটভাটাগুলো বছরে ১৫-২০ মিলিয়ন টন কয়লা পুড়িয়ে থাকে, যা বায়ুমন্ডলে ৪০ মিলিয়ন টনেরও বেশী ক্ষতিকর কার্বন ডাই অক্সাইড নির্গমন করে। অগ্নিমিত্র সেনগুপ্ত, অঙ্কন পোদ্দার, উৎসব ভট্টাচার্য্য – এই তিন সহপাঠীকে সাথে নিয়ে অভিষেক তৈরী করেছে প্লাস্টিকিউব, যা মূলতঃ পরিত্যক্ত প্লাস্টিক বর্জ্য থেকে বানানো বিকল্প ইট। এই কাজের জন্য অভিষেক ও তার দল ভারতের পশ্চিমবঙ্গের বর্জ্য সংগ্রহকারীদের থেকে প্রচুর পরিত্যক্ত পানির বোতল ও প্লাস্টিকের জঞ্জাল সংগ্রহ করেন। প্রতিটি প্লাস্টিকের ইট তৈরীতে গড় খরচ হয় ৪ থেকে ৫ টাকা, যেখানে মাটির তৈরী ইট বিক্রি হয় ১০টাকায়। ভারত প্রতিদিন গড়ে আনুমানিক ২৫,০০০ টন বর্জ্য ফেলে দেয়। প্লাস্টিকের তৈরী ইট একইসাথে বর্জ্য পুনঃব্যবহার, উৎপাদন খরচ কমানো এবং পরিবেশ দূষণ রোধে কার্যকরী ভূমিকা পালন করছে। সম্পাদনা : ইকবাল খান




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]