• প্রচ্ছদ » শেষ পাতা » রিকন্ডিশন্ড গাড়ি আমদানিতে শুল্ক কমানোর দাবি বারভিডার সভাপতির


রিকন্ডিশন্ড গাড়ি আমদানিতে শুল্ক কমানোর দাবি বারভিডার সভাপতির

আমাদের নতুন সময় : 15/12/2019

 

মো. আখতারুজ্জামান : গাড়ি আমদানিকারদের সংগঠন বাংলাদেশ রিকন্ডিশন্ড ভেহিকেলস ইমপোটার্স অ্যান্ড ডিলারস অ্যাসোসিয়েশন (বারভিডা) গতকাল শনিবার রাজধানীর পল্টনস্থ বারভিডা’র কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এ দাবি জানানো হয়। এ সময় সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক শহিদুল ইসলাম, সহ-সভাপতি মনোয়ার হোসেনসহ অন্যরা নেতারা ছিলেন।
সংগঠনটির সভাপতি জানান, রিকন্ডিশন্ড গাড়ি আমদানির ক্ষেত্রে ক্রমাগত শুল্ক আরোপের কারণে গাড়ির দাম বেড়ে যাচ্ছে। এতে রিকন্ডিশন্ড গাড়ির চাহিদা ও ক্রেতা কমে যাচ্ছে। ফলে গাড়ি আমদানির পরিমাণও কমে গেছে। ফলে সরকার একদিকে রাজস্ব হারাচ্ছে, অন্যদিকে এ খাতে কর্মসংস্থান সংকুচিত হয়ে পড়েছে। তিনি জানান, ২০১৭-১৮ অর্থবছরে রিকন্ডিশন্ড গাড়ি আমদানি হয়েছে ২৩ হাজার ৭৫টি, যেখানে ২০১৮-১৯ অর্থবছরে আমদানি হয়েছে ১২ হাজার ৫০২টি। অর্থাৎ এক বছরের ব্যবধানে রিকন্ডিশন্ড গাড়ি আমদানি কমেছে ১০৫৭৩টি। ফলে এ সময়ে হাজার কোটি টাকার উপরে রাজস্ব কমেছে। সেই সাথে ভোক্তারা সুলভমূল্যে মানসম্পন্ন গাড়ি কেনা থেকেও বঞ্চিত হচ্ছেন। ফলে অনিরাপদ যান নছিমন, করিমন ও ভটভটি খ্যাত গাড়িগুলো অবাধে চলছে দেশের সড়ক ও মহাসড়কে যা প্রতিনিয়ত দূর্ঘটনার অন্যতম কারন। প্রতিযোগিতায় টিকতে না পেরে এ খাতের অনেক আমদানিকারক ও উদ্যোক্তা ব্যবসা থেকে ছিটকে পড়ছেন।
আবদুল হক বলেন, একটি জটিল প্রক্রিয়ায় রিকন্ডিশন্ড গাড়ির শুল্কায়ন করা হচ্ছে। আমরা চাই নতুন ও পুরনো গাড়ির নির্বিশেষে সকলের জন্য একটি সুষ্ঠু নীতিমালা প্রণয়ন করা হোক। সম্পাদনা : ইকবাল খান




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : info@amadernotunshomoy.com