• প্রচ্ছদ » প্রথম পাতা » হতাশ মনে নির্বাচন কমিশন থেকে বিদায় নিতে হয়েছে, তারা সাংবিধানিক বাধ্যবাধকতার কথা বলেছেন, আমরা বলেছি আমাদের হৃদয়ের অনুভূতির কথা, বললেন বাংলাদেশ হিন্দু বৌদ্ধ-খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের সাধারণ সম্পাদক রানা দাশগুপ্ত


হতাশ মনে নির্বাচন কমিশন থেকে বিদায় নিতে হয়েছে, তারা সাংবিধানিক বাধ্যবাধকতার কথা বলেছেন, আমরা বলেছি আমাদের হৃদয়ের অনুভূতির কথা, বললেন বাংলাদেশ হিন্দু বৌদ্ধ-খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের সাধারণ সম্পাদক রানা দাশগুপ্ত

আমাদের নতুন সময় : 14/01/2020

 

রাজীব রায়হান : ২] সোমবার বিকেল ৩টা থেকে সাড়ে ৪টা পর্যন্ত রাজধানীর আগারগাঁও নির্বাচন ভবনে নির্বাচন কমিশন ও পরিষদের বৈঠক হয়। ৩] রানা দাশগুপ্ত বলেন, সরকারের হিসাব অনুযায়ী ২৯ জানুয়ারি সরস্বতী পূজা। আমরা বলেছি, ২৯ জানুয়ারি রাত সাড়ে ১০টার পর থেকে শ্রী পঞ্চমী তিথি শুরু হবে। তারপর দিন ৩০ জানুয়ারি বেলা ১১টার দিকে তিথির অবসান ঘটবে। নিয়ম হলো, শ্রী পঞ্চমী তিথির সকালবেলা সূর্যোদয়ের পর সরস্বতী পূজা অনুষ্ঠিত হয়। এটাই ধর্মীয় শাস্ত্রীয় রীতিনীতি বা বিধান। ৪] তিনি আরও বলেন, আমাদের স্কুল-কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ে উৎসবের সাথে পূজা হয়। ৩০ জানুয়ারি নির্বাচন হলে পূজা হবে কোথায়? ৫] প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে আহ্বান জানিয়ে রানা দাশগুপ্ত বলেন, সরকার ও নির্বাচন কমিশনের যদি শুভবুদ্ধির উদয় হয়, আমাদের অনুভূতিকে তারা যদি যথাযথ মর্যাদায় গ্রহণ করতে পারেন, তাহলে আড়াই কোটি মানুষের পক্ষ থেকে তাদের ধন্যবাদ জানাবো। সরস্বতী পূজার দিন নির্বাচন হলে দেশের সাধারণ মানুষ ও দেশের বাইরে কী বার্তা যাবে? বলা হবে যে, বাংলাদেশে ধর্মীয় স্বাধীনতার সাংবিধানিক অধিকার ক্ষুণœ হচ্ছে। ৬] ২৯ ও ৩০ জানুয়ারি বাদে যেকোনো দিন নির্বাচন করার জন্য আহ্বান জানান হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদ। সম্পাদনা : ভিক্টর রোজারিও




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]