• প্রচ্ছদ » » ভারতের বুদ্ধিজীবীদের সংখ্যাগরিষ্ঠের স্রোতের বিরুদ্ধে দাঁড়িয়ে মেরুদÐ সোজা করে দাঁড়ানোর প্রবল ইচ্ছাটার কারণেই নেহরুর ভারত টিকে যাবে রাষ্ট্র হিসেবে


ভারতের বুদ্ধিজীবীদের সংখ্যাগরিষ্ঠের স্রোতের বিরুদ্ধে দাঁড়িয়ে মেরুদÐ সোজা করে দাঁড়ানোর প্রবল ইচ্ছাটার কারণেই নেহরুর ভারত টিকে যাবে রাষ্ট্র হিসেবে

আমাদের নতুন সময় : 15/01/2020

আজম খান

বাংলাদেশের বিপ্লবীরা ভারতের এনআরসির বিরুদ্ধে মিছিল করেছিলেন। পরে সেই মিছিল নিয়ে কতো কাউতাল। কোনো কোনো বিপ্লবী এক কাঠি বেড়ে ভারতে বেড়াতে গিয়েও হিন্দুত্ববাদবিরোধী সমাবেশে যোগ দিয়েছেন। আমি এটারে তিরস্কারযোগ্য কাজ হিসেবে দেখি না। প্রশংসামূলকভাবেই দেখি যদি নিজের দেশেও ইসলামবাদীদের আধিপত্যবাদের বিরুদ্ধে এভাবে দাঁড়াতে পারেন। এই কলিজা আবার তাদেও নেই। নিরাপদ দূরত্বে, নিরাপদ কাজ করে যতোটা হাতেতালি নেয়া যায় সেইটাই তারা করছেন। আজকে দুইদিন ইসলামবাদীদের কারণে গ্রেপ্তার হয়েছেন একজন বাউল। ভারতে হিন্দুত্ববাদীরা এই কাজ করলে এতোক্ষণে সেখানের বিপ্লবীরা তুঘলকি বাধিয়ে দিতেন। কিন্তু বাঙালি বিপ্লবী হতে শুরু করে বাইচান্স বিপ্লবী নূরা, রাশেদরাও এলাকাতে নেই। ভারতে অন্যায় হচ্ছে তার বিরুদ্ধে মিছিল করতে পারলি, কিন্তু নিজের দেশের অন্যায়ের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করতে একটা মিছিল করতে পারলি না। ভারতের বুদ্ধিজীবীদের সংখ্যাগরিষ্ঠের স্রোতের বিরুদ্ধে দাঁড়িয়ে মেরুদÐ সোজা করে দাঁড়ার এই প্রবল ইচ্ছাটার কারণেই নেহরুর ভারত টিকে যাবে রাষ্ট্র হিসেবে। বরং রাষ্ট্রের বুনিয়াদকে তা আরও শক্ত ভিত্তি দেবে। একদিন সুপার পাওয়ারও হয়ে যাবে। আমাদের এখানে উল্টা। সমাজতন্ত্রবাদী বিপ্লবীরা মাথানত করেছেন। ইসলামবাদী বিপ্লবীরা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিপি-টিপি হয়ে বসে আছেন। আগামী ২০-৩০ বছর পরে বাংলাদেশের এই ইসলামবাদী বিপ্লবীরা তখনো এটা বলেই জনগণকে সান্ত¡না দেবে, একসময়ে ভারতের মানুষ উন্মুক্ত স্থানে হাগু করতো। যার নিজের কোনো অর্জন নেই, চিন্তার জায়গায় অসৎ, তাদের এসব বলে নিজেকো সান্ত¡না দেয়া ছাড়া বাঁচার কোনো উপায় নেই। ফেসবুক থেকে




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]