• প্রচ্ছদ » » আমাদের বিশ্ববিদ্যালয় বাঁচানোর দাবি কে জানাবে?


আমাদের বিশ্ববিদ্যালয় বাঁচানোর দাবি কে জানাবে?

আমাদের নতুন সময় : 17/01/2020

কামরুল হাসান মামুন : ভারতের বর্তমান বিজেপি সরকারের ধর্মভিত্তিক বৈষম্যের নাগরিকত্ব আইনের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করতে গিয়ে দিল্লির জামিয়া মিলিয়া ইসলামিয়া বিশ্ববিদ্যালয়, উত্তর প্রদেশের আলীগড় বিশ্ববিদ্যালয় ও জওহরলাল নেহরু বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রদের পেটানোর প্রতিবাদে উত্তাল। আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রে ভারতের শিক্ষার মানের কতোটা গুরুত্বপূর্ণ তার প্রমাণ বিশ্বখ্যাত ‘ঘধঃঁৎব’ জার্নাল এই বিষয় নিয়ে রিপোর্ট করেছে যার শিরোনাম ‘চৎড়ঃবপঃ ওহফরধ’ং ঁহরাবৎংরঃরবং’। আমাদের বিশ্ববিদ্যালয় বাঁচানোর দাবি কে জানাবে? বিশ্বের নজর পাইতে হলে আগে বিশ্বমানের বিশ্ববিদ্যালয় হতে হবে। আগামী বছরই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ১০০ বছর জন্মদিন পালন করবে এবং অবস্থাদৃষ্টে মনে হচ্ছে এই ১০০ বছরেই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় রোগে শোকে কাতর হয়ে ১০০ বছরের বৃদ্ধের মতো জীবন কাটাচ্ছে। এর শিশুকাল এবং কৈশোর এমনকি যৌবন কালটিও গৌরবের ছিলো। অথচ একটি বিশ্ববিদ্যালয় হয় চির যুবা। এর জৌলুস কেবল সময়ের সঙ্গে বাড়তেই থাকে। আর এখানে শিক্ষক নিয়োগ, কী শিক্ষক প্রমোশন, কী শিক্ষক বেতন, কী ছাত্রছাত্রীর আবাসিক সুবিধা, কী শ্রেণি কক্ষ ও ল্যাবের অবস্থা সব দিক থেকে এটি ক্ষয়িষ্ণু। যতোদিন আন্তর্জাতিক মানের একজন বিশ্বজনীন শিক্ষাবিদকে ভিসি হিসেবে নিয়োগ না দেওয়া হবে ততোদিন এর ধস নামতেই থাকবে। আমাদের কোনো সরকারই চায় না এর মান বাড়ুক। এর মাধ্যমে আমাদের ভবিষ্যৎ প্রজন্ম আলোকিত মানুষ হয়ে বেড়ে উঠুক। বরং এর টুঁটি চেপে ধরার জন্য যতো কিছু করা যায় তার সব কিছুই নিখুঁতভাবে করছে। ফেসবুক থেকে




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]