• প্রচ্ছদ » » মধ্যবিত্তকে ক্ষেপালে ক্ষমতা এবং ছালা দুইটাই হারাবেন


মধ্যবিত্তকে ক্ষেপালে ক্ষমতা এবং ছালা দুইটাই হারাবেন

আমাদের নতুন সময় : 19/02/2020

অনির্বাণ আরিফ

আমার বাবা নেই, ভাই নেই। একটিমাত্র ছোট বোন ছিলো মরে গেছে। বৃদ্ধ মা আর আমি একসঙ্গে থাকি। আমি নাজমা আক্তার। বছর পাঁচেক আগে আমার বিয়ে হয়েছিলো। মদ্যপ স্বামীর সঙ্গে ঘর করা সম্ভব হয়নি। তাই বাবার বাড়ি চলে আসলাম। আমি ঢাকায় চলে যেতে পারতাম। কোনো একটা ছোট চাকরি বা গার্মেন্টেসে কাজ করে মোটামুটি নিজের জীবন চালিয়ে নেওয়া যেতো। কিন্তু মাকে দেখার তো কেউ নেই। তাই আমি বাবার বাড়িতেই আছি। বাবার রেখে যাওয়া কিছু টাকা ছিলো। নগদ টাকা ভেঙে খেলে ক’বছর পরই আমাদের না খেয়ে মরতে হবে। ব্যবসাপাতি বা অন্য কোথাও বিনিয়োগ করার মতো সুযোগ না থাকায় টাকাগুলো পোস্ট অফিসে রাখলাম। মাসে মাসে সে টাকার লভ্যাংশ দিয়ে আমাদের কোনোমতে চলে যাচ্ছে।
সম্প্রতি শুনলাম সরকার পোস্ট অফিসের সে লভ্যাংশ অর্ধেকে নামিয়ে দিয়েছে। কথাটি শুনে আমার মাথা ফাঁকা হয়ে গেলো। কীভাবে চলবে আমাদের সংসার। টাকা উত্তোলন করেও কী করবো। এটা নাজমার গল্প নয়। এটা এ দেশের মধ্য এবং নি¤œমধ্যবিত্ত প্রায় পাঁচ কোটি মানুষের গল্প। এ গল্প সরকারের কাছে গালগল্প মনে হতে পারে। কিন্তু সরকার যে উন্নয়নের গল্প শোনায় কিছুদিন পর সংকটে পড়া পাঁচ কোটি মানুষের কাছে সরকারের উন্নয়নের গল্পকেও গালগল্প মনে করবে। কারণ পাঁচ কোটি মানুষ অনিরাপদ হয়ে পড়লে তারা সরকারকে বিশ্বাস করবে না। টাকা নেই বিয়াল্লিশ লাখ টাকার বালিশ কেনা বাদ দেন। আমলা/কামলাদের পেটের চর্বি কমাতে বলেন। শেয়ার লুটেরাদের কাছে যান। সুইস ব্যাংকে খোঁজ লাগান। মধ্যবিত্তের পেটের দিকে তাকান কেন। মনে রাখবেন মধ্যবিত্তকে ক্ষেপালে ক্ষমতা এবং ছালা দুইটাই হারাবেন। ফেসবুক থেকে




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]