• প্রচ্ছদ » » করোনা মোকাবেলায় নিরাপদ শারীরিক দূরত্ব বজায় রাখার পাশাপাশি মানুষের প্রতি সহানুভূতিশীল থাকা উচিত বলেও মনে করেন চিকিৎসকেরা


করোনা মোকাবেলায় নিরাপদ শারীরিক দূরত্ব বজায় রাখার পাশাপাশি মানুষের প্রতি সহানুভূতিশীল থাকা উচিত বলেও মনে করেন চিকিৎসকেরা

আমাদের নতুন সময় : 20/03/2020

আশিক রহমান : [২] করোনাভাইরাস থেকে রক্ষা পেতে সোশ্যাল ডিসট্যান্স বা সামাজিক দূরত্বের কথা বলা হচ্ছে। পারস্পরিক মেলামেশাটাই সমস্যা, এমনটিও বলছেন অনেকে। করোনা থেকে বাঁচতে সোশ্যাল ডিসট্যান্স, নাকি শারীরিক দূরত্ব বজায় রাখবে মানুষ? [৩] প্রধানমন্ত্রীর চিকিৎসক অধ্যাপক ডা. এবিএম আবদুল্লাহর মতে, সামাজিক দূরত্ব মানে, বিয়েশাদি, ধর্মীয় অনুষ্ঠান, ওয়াজ-মাহফিল এসব বাদ দেওয়া। [৪] শারীরিক দূরত্বও বজায় রাখতে হবে। কারণ হাঁচি-কাশির মাধ্যমে এই ভাইরাস অন্যদের মধ্যে ছড়াতে পারে।
[৫] প্রিভেনটিভ মেডিসিন বিশেষজ্ঞ ডা. লেলিন চৌধুরীর বলেন, যখন কোনো জনসমাগম হবে তখন একজন থেকে আরেকজনের দূরত্ব যেন অত্যন্ত তিন ফিট, ভালো হয় ৬ ফিট দূরত্বে থাকলে। এটাই সোশ্যাল ডিসট্যান্স বা সামাজিক দূরত্ব। কিন্তু অনেকেই তা ঠিকমতো বোঝাতে পারেন না। আমরা গণসংক্রমণের প্রথম ধাপে আছি, এই সময়ে মানুষের সঙ্গে মানুষের সামাজিক গ্যাদারিং বা সমাবেশ না করলে ভালো। কোনো আয়োজন করলেও যেন একজন থেকে আরেকজনের দূরত্ব তিন থেকে ছয় ফিট থাকে।
[৬] চিকিৎসকদের মতে, সামাজিক দূরত্ব তৈরি করলে অসুস্থ মানুষ বিপদগ্রস্ত থাকবেন, কেউ খবর নেবে না। বয়স্ক মা-বাবার খবর কেউ রাখবে না। [৮] সামাজিকভাবে বন্ধুসুলভ থাকতে হবে,শারীরিকভাবে দূরত্ব বজায় রাখলে নিরাপদ থাকা যাবে। সম্পাদনা: হাসান হাফিজ




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]