• প্রচ্ছদ » » ইন্টারনেট : বিশ্বমারীর বিচ্ছন্নতায় মনুষ্য-সহায়!


ইন্টারনেট : বিশ্বমারীর বিচ্ছন্নতায় মনুষ্য-সহায়!

আমাদের নতুন সময় : 05/04/2020

মাসুদ রানা

চলমান করোনাভাইরাসের বিশ্বমারীর সবচেয়ে মনুষ্য-বিদ্বেষী দিক হচ্ছে মানুষকে পরস্পর থেকে ভৌতভাবে বিচ্ছিন্ন থাকতে বাধ্য করা। সমাজিক জীব হিসেবে মানুষের জন্য এটি একটি অসহনীয় শাস্তি। সৌভাগ্যবশত বিশ্বের মানুষ ভৌতভাবে বিচ্ছিন্ন থাকা সত্তে¡ও বৈদ্যুতিক বিজ্ঞান ও তথ্য-প্রযুক্তির অবদানে সৃষ্ট ইন্টারনেটের সামর্থ্যে সামাজিক সংযোগাযোগ মাধ্যমে পরস্পরের কাছে আসছে। এটি না থাকলে যে কী হতো, তা ভাবতে গেলেও ভয় হয়। আমার ধারণা, যে সব মানুষ বিজ্ঞানের সব প্রকারের সুফল ভোগ করেও বিজ্ঞান ও বৈজ্ঞানিকতার বিরুদ্ধে অপপ্রচার করে জনসাধারণকে অন্ধ বিশ্বাসের দাস বানিয়ে তাদের আনুগত্য, সেবা ও সম্পদ লুটতে চায়, তারাও আজ বিজ্ঞানের এই অবদান ব্যবহার করছেন।
আমি জানি, অন্ধ বিশ্বাসের প্রচারকরা ও অনুসারীরা তাদের সচেতন বা অসচেতন মৌলিক অসত্যতার কারণে বিজ্ঞানের এই অবদান ও এর প্রতি কৃতজ্ঞতা স্বীকার করবেন না। কিন্তু প্রতিটি সৎ, স্বাধীন ও মুক্তচিন্তার মানুষের উচিত স্বীকার করা। মানুষের উপর ভরসা রাখুন, মানুষকে ভালোবাসুন। মানুষই পারে তার স্মরণাতীতকাল থেকে সঞ্চিত, বিকশিত জ্ঞান ও বিজ্ঞানকে কাজে লাগিয়ে সব প্রাকৃতি দুর্যোগ ও মানবিক বিপর্যয়কে জয় করতে। মানুষের প্রতি মানুষের প্রেমই হচ্ছে সব মহৎ ও মানবিক সৃষ্টির প্রেরণা। মানুষ ছাড়া ভরসা করার মতো মানুষের অন্য কিছু নেই। ০৩/০৪/২০২০, লÐন, ইংল্যাÐ




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]