• প্রচ্ছদ » শেষ পাতা » [১]টিকেট কালোবাজারি ঠেকাতে নির্বাচন কমিশনের এনআইডি সার্ভার ব্যবহার করতে চায় রেলওয়ে [২]যার নামে টিকেট তাকেই ভ্রমণ করতে হবে, অবশ্যই সঙ্গে রাখতে হবে জাতীয় পরিচয়পত্র


[১]টিকেট কালোবাজারি ঠেকাতে নির্বাচন কমিশনের এনআইডি সার্ভার ব্যবহার করতে চায় রেলওয়ে [২]যার নামে টিকেট তাকেই ভ্রমণ করতে হবে, অবশ্যই সঙ্গে রাখতে হবে জাতীয় পরিচয়পত্র

আমাদের নতুন সময় : 11/05/2020

সালেহ্ বিপ্লব : [৩] ১৮৯০ সালের রেলওয়ে আইনের ১১৪ ধারায় টিকিট হস্তান্তর শাস্তিযোগ্য অপরাধ। কিন্তু আইনের প্রয়োগ নেই। শুধুমাত্র স্লিপিং কোচে রিজার্ভেশনের সময় যাত্রীর নাম এন্ট্রি করা হয়, তাও ওই যাত্রী ভ্রমণ করছেন কি না, তা চেক করা হয় না। [৪] পৃথিবীর কোনো দেশে একজনের টিকেটে অন্যজন ভ্রমণ করতে পারে না। ভারতে টিকিটে লিখা নামের সঙ্গে জাতীয় পরিচয়পত্রের নাম না মিললে পরবর্তী স্টেশনে নামিয়ে দেয়া হয়। [৫] এই পদ্ধতিই কাজে লাগাতে চাইছে বাংলাদেশ রেলওয়ে। রেলপথ মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মাহবুব কবীর মিলন জানান, রেলওয়ের সার্ভারকে নির্বাচন কমিশন এনআইডি সার্ভারের সাথে হুক আপ করতে হবে। তাদের সঙ্গে কথা হয়েছে। [৬] তিনি জানান, কোনো জটিলতা নেই, সামান্য প্রসেস। ইসির সার্ভারের মোট ক্ষমতার মাত্র ২০ শতাংশ এখন ব্যবহার হচ্ছে। ৮০ শতাংশ অব্যবহৃত। কাজেই লাখ লাখ হিট একসাথে হলেও সার্ভার হ্যাং হবে না। [৭] অতিরিক্ত সচিব আরো জানান, রেলটিকেট কিনতে হলে অনলাইনে রেজিস্ট্রেশন করতে হবে এনআইডি নাম্বার দিয়ে। এনআইডি সার্ভার ভেরিফাই করে ওকে করলে যাত্রী একটা পিন নাম্বার পাবেন। আইডেন্টিক্যাল এই নাম্বার দিয়ে সব সময় টিকিট কেনা যাবে।[৮] শুরুতে এই পদ্ধতি সব ট্রেনে কার্যকর করা কিছুটা কঠিন হবে। তবে বিরতিহীন ও আন্তঃনগর ট্রেনে কার্যকর করা যাবে খুব সহজেই। সম্পাদনা : খালিদ আহমেদ




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]