• প্রচ্ছদ » শেষ পাতা » [১]আমদানি করা ম্যালাথিউন পড়ে আছে, টেন্ডার সম্পন্ন না হওয়ায় মশক নিধনের ওষুধ বানানো হয়নি [২]ডিএসসিসির এই অবহেলায় এবার ডেঙ্গু পরিস্থিতি ভয়াবহ হওয়ার আশঙ্কা


[১]আমদানি করা ম্যালাথিউন পড়ে আছে, টেন্ডার সম্পন্ন না হওয়ায় মশক নিধনের ওষুধ বানানো হয়নি [২]ডিএসসিসির এই অবহেলায় এবার ডেঙ্গু পরিস্থিতি ভয়াবহ হওয়ার আশঙ্কা

আমাদের নতুন সময় : 19/05/2020

সুজিৎ নন্দী : [৩] গতবছর ডেঙ্গু রোগের প্রাদুর্ভাবের পর বিদেশ থেকে সরাসরি ওষুধ আমদানির অনুমতি দেয়া হয় ঢাকার দুই সিটি করপোরেশনকে। এরপর ভারত থেকে ম্যালাথিউন ৫% আমদানি করে দক্ষিণ সিটি করপোরেশন। [৪] আমদানিকৃত ওষুধটি সরাসরি ব্যবহার উপযোগী নয়। এর সঙ্গে ৯৫ শতাংশ ডিজেল এবং ২৫ থেকে ৫০ এমএল সাইট্রোনেলা মিশিয়ে ছিটাতে (ফগিং) হয়। এজন্য ডিজেল এবং ওষুধের ফরমুলেশন সঠিক হতে হয়। এটি করার জন্য সিটি করপোরেশনের নিজস্ব কোনও প্রযুক্তি নেই। [৫] ওষুধ ফরমুলেশনের জন্য গত ১ জানুয়ারি টেন্ডার আহ্বান করে ডিএসসিসি। এতে প্রাক্কলিত ব্যয় ধরা হয় ১২ কোটি ৪১ লাখ ৬০ হাজার টাকা। এতে সর্বনিম্ন দরদাতা হয় দ্য লিমিট অ্যাগ্রো প্রোডাক্টস লিমিটেড। কিন্তু গতবছর মানহীন ওষুধ সরবরাহের অভিযোগ থাকায় প্রতিষ্ঠানটিকে কার্যাদেশ দেওয়া হয়নি। দ্বিতীয় অবস্থানে ছিল মেসার্স ফরওয়ার্ড ইন্টারন্যাশনাল (বিডি) লিমিটেড। আর তৃতীয় অবস্থানে ছিল জাহিন কনস্ট্রাকশন। কিন্তু কোনও প্রতিষ্ঠানকে কার্যাদেশ না দিয়ে ফের টেন্ডার আহ্বান করে ডিএসসিসি। [৫] দক্ষিণ সিটি সূত্র জানায়, ফগিং করার জন্য ভা-ার বিভাগ থেকে কোনও ওষুধ দেয়া হচ্ছে না। যেখানে খুবই জরুরি, সেখানে ডিজেলের সঙ্গে কয়েক ফোঁটা ওষুধ দিয়ে পাঠিয়ে দেয়া হচ্ছে। ওই ওষুধে কোনো কাজ হয় না। [৬] নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক কর্মকর্তা বলেন, কখনো কখনো আমরা মানুষকে বুঝ দেওয়ার জন্য শুধু ডিজেল ছিটিয়ে ধোঁয়া দিয়ে আসি। যাতে মানুষ দেখে যে আমরা মাঠে আছি। কিন্তু আমাদের কাছে কোনও ওষুধ নেই। সম্পাদনা : সালেহ্ বিপ্লব




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]