• প্রচ্ছদ » প্রথম পাতা » [১]২০১৮-১৯ অর্থবছরে দেশের বিদ্যুৎ উৎপাদন সক্ষমতার ৪৩ শতাংশ ব্যবহার করেছে সরকার [২]ইন্দোনেশিয়ার অভিজ্ঞতা থেকে শিক্ষা নিয়ে নবায়নযোগ্য জ্বালানি থেকে বিদ্যুৎ উৎপাদনের সুপারিশ মার্কিন সংস্থার রিপোর্টে


[১]২০১৮-১৯ অর্থবছরে দেশের বিদ্যুৎ উৎপাদন সক্ষমতার ৪৩ শতাংশ ব্যবহার করেছে সরকার [২]ইন্দোনেশিয়ার অভিজ্ঞতা থেকে শিক্ষা নিয়ে নবায়নযোগ্য জ্বালানি থেকে বিদ্যুৎ উৎপাদনের সুপারিশ মার্কিন সংস্থার রিপোর্টে

আমাদের নতুন সময় : 20/05/2020

ইকবাল খান : [৩] সোমবার প্রকাশিত যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক ইনস্টিটিউট ফর এনার্জি ইকোনমিকস অ্যান্ড ফাইন্যান্সিয়াল অ্যানালিসিস (আইইইএফএ) বাংলাদেশের বিদ্যুৎ নিয়ে র্পালোচনা রিপোর্টে আরও বলা হয়, ২০১৮-২০১৯ অর্থবছরে দেশের মোট উৎপাদন সক্ষমতার ৫৭ শতাংশ ব্যবহার হয়নি। সূত্র: শীর্ষনিউজ।
[৪] রিপোর্টে বলা হয়, করোনাভাইরাস অতিমহামারীর প্রভাবে বিদ্যুতের দীর্ঘমেয়াদী চাহিদা যতটা থাকবে বলে পূর্বাভাস দেওয়া হয়েছিল, তার চেয়ে কমবে বলে গবেষণা দলের অন্যতম সদস্য আইইইএফএর জ্বালানি অর্থায়ন বিশ্লেষক সিমন নিকোলাস মনে করেন। [৫] বাংলাদেশে সর্বোচ্চ ১২ হাজার মেগাওয়াট চাহিদার বিপরীতে বিদ্যুৎখাতের মোট উৎপাদন সক্ষমতা ১৯ হাজার ৬৩০ মেগাওয়াট। তবে বিউবোর ওয়েবসাইটে দেওয়া সর্বশেষ তথ্য অনুসারে, রোববার সন্ধ্যায় পিক আওয়ারে প্রকৃত সর্বোচ্চ চাহিদা ছিল ১০ হাজার মেগাওয়াটের কাছাকাছি। বিডিনিউজ২৪।
[৫] আশু লোকসান নিয়ন্ত্রণে গ্যাস ও কয়লা আমদানি করে বিদ্যুৎ উৎপাদনের পরিকল্পনা থেকে সরে আসার সুপারিশ করে গবেষণা রিপোর্টে ইন্দোনেশিয়ার অভিজ্ঞতা তুলে ধরা হয়েছে। প্রয়োজনের চেয়ে বেশি বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণ করায় ২০১৮ সালে ইন্দোনেশিয়া রাষ্ট্রায়ত্ত বিদ্যুৎ কোম্পানি পিএলএনকে ৫ বিলিয়ন ডলার ভর্তুকি দিয়েছে। ইন্দোনেশিয়া সরকার এখন বলছে যে , তারা নবায়নযোগ্য শক্তি থেকে বিদ্যুৎ উৎপাদনের নতুন পরিকল্পনা হাতে নিয়েছে।
[৬] বিদ্যুৎ খাতকে নিরাপদ ও স্থিতিশীল করতে কয়লা ও এলএনজিভিত্তিক বিদ্যুৎ উৎপাদনের পরিকল্পনা থেকে সরে এসে বাংলাদেশকে নবায়নযোগ্য জ্বালানিতে যেতে সুপারিশ করা হয়েছে গবেষণা রিপোর্টে।




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]