• প্রচ্ছদ » শেষ পাতা » [১]প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবেলায় রাষ্ট্রের ভূমিকা ও জনপ্রতিনিধিদের তৎপরতা না থাকায় দুর্ভোগ দিনকে দিন বাড়ছে : আনু মুহাম্মদ


[১]প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবেলায় রাষ্ট্রের ভূমিকা ও জনপ্রতিনিধিদের তৎপরতা না থাকায় দুর্ভোগ দিনকে দিন বাড়ছে : আনু মুহাম্মদ

আমাদের নতুন সময় : 23/05/2020

শিমুল মাহমুদ: [২] তেল-গ্যাস-খনিজ সম্পদ ও বিদ্যুৎ-বন্দর রক্ষা জাতীয় কমিটির সদস্য সচিব অধ্যাপক আনু মুহাম্মদ বলেছেন, করোনার কারণে দেশের অর্থনৈতিক অবস্থা নাজুক। এরমধ্যে ঘূর্ণিঝড় আম্ফান দক্ষিন-পশ্চিম অঞ্চল এবং উপকূলীয় এলাকার মানুষদের ওপরে একটা ভয়ানক চাপ সৃষ্টি করেছে। কর্মহীন এ সকল মানুষ তাদের ফসল, বাড়িঘর সব হারিয়েছে। বিশেষ করে নি¤œ ও মাঝারি আয়ের মানুষ ক্ষুধা ও অনিশ্চয়তার মধ্যে আছে। [৩] তিনি বলেন, সরকারের উচিত প্রথমে ঘূর্ণিঝড়ে যে ক্ষতি হয়েছে এর কারণ অনুসন্ধান করা। প্রতিবার আমরা দেখি, নি¤œ এলাকা প্লাবিত হয়, বাঁধ ভেঙ্গে যায়, এর মেরামত হয় না। দশকের পর দশক মেরামতের জন্য বাজেট হয়, সেই বরাদ্দের টাকা চলে যায় এক শ্রেণীর লোকের কাছে। এটা চলতে দেয়া যায় না। [৪] আনু মুহাম্মদ বলেন, দেশে বেকারত্বের নিরসনের সঠিক কোনো প্রক্রিয়া এখনো নেয়া হয়নি। সেটা থাকলেও হয়তো দক্ষিন-পশ্চিম অঞ্চলের মানুষের ভোগান্তিটা একটু কম হতো। টেলিভিশন দেখলে বড় বড় আশ্বাসের কথা শুনা যায় কিন্তু বাস্তবে তার প্রতিফলন দেখি না। যদি সত্যতা থাকতো তাহলে সিডরে ও আইলার যে ক্ষতি হয়েছে এবং তা পূরণের জন্য যে বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে সেটি তো ঠিক মতো কাজে লাগেনি কেনো? [৫] কৃষিসহ অন্যান্য যে ক্ষতি হয়েছে সে ক্ষতিটা পুষিয়ে উঠতে রাষ্ট্রীয় ব্যবস্থা থাকা দরকার। সামাজিক নিরাপত্তা, নাগরিকদের দায়দায়িত্ব আমাদের এখানে পুরোপুরি অনুপস্থিত। কোনো নাগরিক যদি ক্ষতিগ্রস্ত হয় তার পাশে যদি রাষ্ট্র না থাকে তাহলে রাষ্ট্রের ভূমিকা কী? আর সে কারণে প্রাকৃতিক দুর্যোগে বাংলাদেশের মানুষের দুর্ভোগ আরো বেড়ে যায়। [৬] সরকারের তথাকথিত জনপ্রতিনিধি যারা আছেন, এমপি থেকে চেয়ারম্যান পর্যন্ত, তাদের কোনো সময়েই এ সকল প্রাকৃতিক দুর্যোগে তৎপর দেখা যায় না। মাঝে মাঝে দেখা গেলেও বেশিরভাগ ক্ষেত্রে দুর্নীতির অভিযোগ। যাদের কাজ হচ্ছে জনগণের টাকা তুলে খেয়ে ফেলা। সম্পাদনা : সালেহ্ বিপ্লব




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]