• প্রচ্ছদ » » ১৭ কোটি মানুষের জীবন নিয়ে জুয়া খেলার অধিকার রাষ্ট্রকে কে দিয়েছে?


১৭ কোটি মানুষের জীবন নিয়ে জুয়া খেলার অধিকার রাষ্ট্রকে কে দিয়েছে?

আমাদের নতুন সময় : 01/06/2020

বীথি সপ্তর্ষি

২৬ মার্চ থেকে দেশে ‘সাধারণ ছুটি’ নামে অলিখিত লকডাউন শুরু হয়। বিজনেস স্ট্যান্ডার্ডের তথ্য মতে, ২৫ মার্চ পর্যন্ত মৃতের সংখ্যা ৫ ও আক্রান্তের সংখ্যা সর্বমোট ৩৯ জন। এমনকি ওই ২৫ তারিখ নতুন কোনো রোগীই শনাক্ত হয়নি। ৩১ মে থেকে অলিখিত লকডাউন তথা সাধারণ ছুটি শেষ হতে যাচ্ছে যখন ৩০ মে নতুন শনাক্ত ২৫০৩, সর্বমোট শনাক্ত ৪২৮৪০ এবং মৃত্যু ৫৯০। অর্থাৎ বলতে গেলে দেশের ১৭ কোটি সুস্থ মানুষের ভেতর প্রায় ৫০ হাজার ভাইরাস ছেড়ে দেয়া হচ্ছে। যারা বাঁচার বাঁচবে, যারা মরার মরবে। সরকার দেশের ‘অর্থনৈতিক অবস্থাকে ক্ষতির সম্মুখীন’ করে জনগণকে আর কোনো ধরনের নিরাপত্তা দিতে পারবে না। কথা শেষ।
কিন্তু শেষ না। আমাদের জানার অধিকার আছেÑ লকডাউনকে লকডাউন না বলে ‘সাধারণ ছুটি’ কেন বলা হলো? লকডাউন চলাকালীন সময়ে চাকরি হারানো, নি¤œবিত্ত মানুষের ঘরে খাবার-রেশন কেন পৌঁছে দেওয়া হলো না? ত্রাণের অনিয়ম নিয়ে রিপোর্ট করার ফলে হরেদরে সাংবাদিকদের নামে কেন মামলা দেয়া হলো? সাধারণ ছুটি ঘোষণা করার পর ২ দিন যানবাহন খোলা রেখে মানুষকে ব্যাপকহারে বাড়ি যেতে দেয়ার সুযোগ কেন দেয়া হলো? ডাক্তার-নার্সদের নকল মাস্ক কেন সরবরাহ করা হলো? তাদের পর্যাপ্ত স্বাস্থ্য সুরক্ষার সরঞ্জাম কেন দেয়া হলো না? লকডাউনের মধ্যেও এতো এতো ছাঁটাই কেন চললো? লকডাউনের সময় মানুষকে কেন রাস্তায় নামতে হলো?
ক্ষুধার জ্বালায় কেন গলায় দড়ি দেয়ার ঘটনা ঘটলো? নিজের টাকায় একটা আস্ত পদ্মাসেতু বানাতে পারেন, অথচ ১ কোটি মানুষকে ২ মাস বসিয়ে খাওয়ার মুরোদ নেই আপনাদের? আবার মধ্যম আয়ের দেশ বলেন? মানুষ মেসেঞ্জার-হোয়াটসঅ্যাপে ‘ষড়যন্ত্র’ করলে রাতের বেলা রাষ্ট্রীয় বাহিনী তুলে নিয়ে যায়। অথচ দিনের আলোয় প্রকাশ্যে প্লেন ভাড়া করে খুনের মামলার আসামি কীভাবে দেশের বাইরে পালায়? সর্বোপরি, জানতে চাই ১৭ কোটি মানুষের জীবন নিয়ে জুয়া খেলতে নামার অধিকার রাষ্ট্রকে কে দিয়েছে? আপনারা বাঁচলে জীবন, আর আমরা বাঁচলে ঘুঁটি? ফেসবুক থেকে




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]