• প্রচ্ছদ » লিড ১ » [১]কৃষ্ণাঙ্গ হত্যার প্রতিবাদে অব্যাহত বিক্ষোভ দমাতে সেনাবাহিনী মোতায়েনের হুমকি ট্রাম্পের [২]গভীর শঙ্কা পেন্টাগনের [৩]উর্দিধারীদের ঢালওভাবে বেসামরিক নিরাপত্তা বিধানে নামানো উচিৎ না : ন্যাশনাল গার্ডসের জেনারেল কারডন


[১]কৃষ্ণাঙ্গ হত্যার প্রতিবাদে অব্যাহত বিক্ষোভ দমাতে সেনাবাহিনী মোতায়েনের হুমকি ট্রাম্পের [২]গভীর শঙ্কা পেন্টাগনের [৩]উর্দিধারীদের ঢালওভাবে বেসামরিক নিরাপত্তা বিধানে নামানো উচিৎ না : ন্যাশনাল গার্ডসের জেনারেল কারডন

আমাদের নতুন সময় : 03/06/2020

আসিফুজ্জামান পৃথিল : [৪] সেনাবাহিনী বিক্ষোভ দমাতে প্রস্তুত, মার্কিন প্রেসিডেন্টের এই বক্তব্যের সঙ্গে একমত নন পেন্টাগনের অধিকাংশ কর্মকর্তা। সোমবার হোয়াইট হাউজের রোজ গার্ডেনে দাঁড়িয়ে ট্রাম্প বলেন, রাজ্য গভর্নর ও নগরীর মেয়ররা যদি বল প্রয়োগ করে বিক্ষোভ দমনে ব্যর্থ হন, তবে ইনসরাকশান আইন বলবৎ করবেন। সিএনএন, ওয়াশিংটন পোস্ট, ফক্স।
[৫] ১৮০৭ সালের এই আইনের সহায়তায় মার্কিন প্রেসিডেন্ট অভ্যন্তরীণ স্থিতিশীলতা রক্ষায় সেনা মোতায়েন করতে পারেন। তবে পেন্টাগন এই পরিকল্পনায় রাজি নয়। কারণ, এমনটা হলে গৃহযুদ্ধের দিকে এগিয়ে যেতে পারে এই বিক্ষোভ।
[৬] পেন্টাগনের মতে, রাজ্যগুলোর গভর্নররা চাইলে সেনা মোতায়েন করা যেতে পারে।
[৭] এই সংক্রান্ত আইনের ব্যাখ্যা দিয়ে এক প্রতিরক্ষা কর্মকর্তা বলেন, আইন বলছে, স্থানীয় আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর হাতেই কর্তৃত্ব থাকা উচিৎ।
[৮] বেসামরিক নিরাপত্তায় মোতায়েন হওয়া নিয়েও এমনকি ন্যাশনাল গার্ডের ভেতরেও অস্বস্তি আছে। জর্জিয়া ন্যাশনাল গার্ডের অ্যাডজুট্যান্ট মেজর জেনারেল থমাস কারডন আরও বলেছেন, আমাদের ক্রাউড কন্ট্রোলের অভিজ্ঞতা নেই। যে কোনও মুহূর্তে অকারণে ট্রিগারে চাপ পরে যেতে পারে। আমরা শিখেছি, উত্তেজিত শত্রু তোমার দিকে তেড়ে এলে ট্রিগার চাপতেই হবে। এখন কি আমরা জনগনকে শত্রু বিবেচনা করবো? সম্পাদনা : ইকবাল খান




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]