• প্রচ্ছদ » প্রথম পাতা » [১]সাধারণের ক্ষুদ্রদানে জাতীয় কোভিড ফান্ড গঠনের প্রস্তাব করেছেন ড. আতিউর রহমান


[১]সাধারণের ক্ষুদ্রদানে জাতীয় কোভিড ফান্ড গঠনের প্রস্তাব করেছেন ড. আতিউর রহমান

আমাদের নতুন সময় : 07/06/2020

ভূঁইয়া আশিক : [২] বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর উদাহরণ দিয়ে বলেছেন, প্রতিবার ফোন কল, এসএমএস ও ইন্টারনেট ডাটা ব্যবহারে ১ পয়সা করে সার চার্জ, যতোবার বাস বা রেলের টিকিট কিনবো ১ পয়সা করে দেবো, ব্যাংকে যতোবার ট্রানজেকশন, প্রতিবার ১ পয়সা।
[৩] একসময় আমরা বঙ্গবন্ধু সেতুর জন্য করেছিলাম। এখন প্রত্যেকে ১ পয়সা করে দেবো। টাকাগুলো জমা হবে একটা ফান্ডে, খুব স্বচ্ছভাবে। জমাকৃত টাকা দিয়ে কোভিড-১৯ রোগীদের চিকিৎসা করবো। গরিব মানুষকে ক্যাশ সহযোগিতাও দিতে পারবো। স্বচ্ছতা নিশ্চিত করলে মানুষ এগিয়ে আসবেই।
[৪] তিনি বলেন, এই ফান্ড রেইজিং রাষ্ট্রকেই করতে হবে। রাষ্ট্র ট্রাস্টিবোর্ড গঠন করতে পারে। এরকম কোনো ট্রাস্টে আমন্ত্রণ পেলে আমি যাবো। [৫] উন্মুক্ত ওয়েবসাইটে প্রতিদিন কতো টাকা সংগ্রহ এবং কোথায় খরচ হচ্ছে, সেটাও থাকবে। ফান্ডের টাকা থেকে বিদ্যানন্দের মতো প্রতিষ্ঠানকে অনুদান দেওয়া যেতে পারে। এখন সবার হাতে মুঠোফোন। সবাইকে যুক্ত করা যাবে।
[৬] সরকারকে একটা সহায়ক উদ্দীপনামূলক পরিবেশ তৈরির কথা বলছি। যেখানে সবাই সাধ্যমতো সহযোগিতা করবে। আমি ১ পয়সার প্রস্তাব করছি, কোনো কোনো ক্ষেত্রে এটা ২ পয়সা বা তারও বেশি হতে পারে। [৭] দেশে অনেক মানুষ বুভুক্ষু, অথচ সরকারি ও বেসরকারি পর্যায়ে আমরা পুরো বড় বড় বেতন বোনাস নেবোÑ তা মানায় না। তবে বেতন থেকে সার চার্জ ট্রাস্টকে দেওয়ার জন্য কাউকে চাপ দেওয়া যাবে না। সব হবে স্বেচ্ছায়। [৮] ব্যাংক, বীমা-আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোর সামাজিক দায়বদ্ধতার প্রকল্প আছে। অন্যান্য করপোরেট প্রতিষ্ঠানগুলোকেও তাদের সিএসআর প্রকল্প থেকে এই ট্রাস্টে দান করতে যুক্ত করা যাবে।




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]