• প্রচ্ছদ » প্রথম পাতা » [১]তিস্তা, ব্রহ্মপুত্র ও ধরলাসহ বিভিন্ন নদনদীর পানি বৃদ্ধি, ৮ জেলায় বন্যার আশঙ্কা [২]কুড়িগ্রামে ২০ হাজার মানুষ পানিবন্দি


[১]তিস্তা, ব্রহ্মপুত্র ও ধরলাসহ বিভিন্ন নদনদীর পানি বৃদ্ধি, ৮ জেলায় বন্যার আশঙ্কা [২]কুড়িগ্রামে ২০ হাজার মানুষ পানিবন্দি

আমাদের নতুন সময় : 27/06/2020

মুরাদ হাসান :[২] উজানের পানি ও টানা বর্ষণে এসব জেলায় নি¤œাঞ্চল প্লাবিত হয়ে বসতবাড়ি ও ফসলি জমি ডুবে গেছে। ৫ জেলায় নদনদীর পানি বিপদসীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।[২] পানি উন্নয়ন বরাত দিয়ে প্রতিনিধি সোহেল রানা জানান, শুক্রবার সকাল ৬টা থেকে তিস্তা নদীর পানি নীলফামারীর ডালিয়া তিস্তা ব্যারেজ পয়েন্টে বিপদসীমার ২০ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। [৩] প্রতিনিধি লাভলু শেখ জানান, লালমনিরহাটের হাতীবান্ধা উপজেলার দোয়ানী তিস্তা ব্যারাজ পয়েন্টে পানি বিপদসীমার ২০ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। [৪] প্রতিনিধি তাহেরুল আনাম জানান, দিনাজপুর শহরের পাশ দিয়ে বয়ে চলা পুনর্ভবা, আত্রাই ৩৮ দশমিক ৬৭মিটার ও ইছামতি নদী বিপদসীমার নিচ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। [৫] প্রতিনিধি শাহনাজ পারভীন জানান, কুড়িগ্রামে ধরলার পানি ৮ সেন্টিমিটার ও চিলমারী পয়েন্টে ব্রহ্মপুত্রের পানি বিপদসীমার ৪ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। এতে নি¤œাঞ্চল ও চরাঞ্চলের অন্তত ২০ হাজার মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। এর ফলে তলিয়ে গেছে চরাঞ্চলের মৌসুমী ফসল ও সবজি ক্ষেত। [৬] তিস্তা, যমুনা, ব্রহ্মপুত্র, করতোয়া ও ঘাঘট নদীর পানি ব্যাপকহারে বৃদ্ধি পেয়ে গাইবান্ধার চার উপজেলার দীর্ঘ চরাঞ্চলের বিস্তীর্ণ এলাকার পাট, কাউন, চিনাসহ বিভিন্ন ফসল ক্ষেত ডুবে গেছে।[৭] যমুনা নদী অধ্যুষিত সিরাজগঞ্জের কাজীপুর, সদর, বেলকুচি, শাহজাদপুর ও চৌহালী উপজেলার ৩০ ইউনিয়নের নি¤œাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে। সম্পাদনা : ইকবাল খান, খালিদ আহমেদ




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]