• প্রচ্ছদ » » কোভিড-১৯ ভেক্সিন আবিষ্কার : এগিয়ে যান ড. আসিফ আহমেদ, অভিনন্দন নামক ঠুনকো বিষয় আপনার প্রয়োজন পড়বে না নিশ্চয়ই


কোভিড-১৯ ভেক্সিন আবিষ্কার : এগিয়ে যান ড. আসিফ আহমেদ, অভিনন্দন নামক ঠুনকো বিষয় আপনার প্রয়োজন পড়বে না নিশ্চয়ই

আমাদের নতুন সময় : 04/07/2020

শারফিন শাহ্ : ঢাকা ইউনিভার্সিটির আবাসিক হলে দীর্ঘ ছয় বছর ছিলেন তিনি। সুতরাং কেমন খাবার খেয়েছেন। কীভাবে থেকেছেন তা সহজেই অনুমেয়। নটর ডেম কলেজে এইচএসসি, আইডিয়াল স্কুল থেকে এসএসসিতে সারা বাংলাদেশে ৭তম স্ট্যান্ড, ঢাকা ইউনিভার্সিটির মাইক্রোবায়োলজি ডিপার্টমেন্ট থেকে মাস্টার্সে ফার্স্ট ক্লাস ফার্স্ট, এরপর জাপানের গিফু ইউনিভার্সিটি থেকে পিএইচডি। তাকে তার এই কৃতিত্বের জন্য আমি অভিনন্দন জানাবো না। যাকে তাকে অভিনন্দন জানানোটা আমাদের একটা রোগে পরিণত হয়েছে। হুমায়ূন আহমেদ বলেছিলেন, ভালো ছাত্র চেষ্টা করলে সবাই হতে পারে। এটা কোনো ব্যাপারই না। ব্যাপারটা হচ্ছে ভালো ছাত্রের কাজগুলো মানুষকে স্পর্শ করছে কিনা। ড. আসিফ আহমেদের কাজ মানুষকে স্পর্শ করার যোগ্যতা অর্জনের দিকেই ধাবমান। তিনি ঢাকায় গেøাব বায়োটেক নামের অত্যন্ত আধুনিক ও লেটেস্ট টেকনোলোজি সমৃদ্ধ ল্যাবের গবেষক। গত প্রায় ৩-৪ মাসের অক্লান্ত পরিশ্রম ও গবেষণা করে করোনাভাইরাসের ভেক্সিন আবিষ্কারের পথে অনেকখানি এগিয়ে গেছেন। এটিতে প্রাণীর দেহে স্ট্রং এন্টিবডি তৈরি হয়েছে। সোজা বাংলায় বললে, প্রাণীর দেহে কাজ করছে এই ভেক্সিন। এখন সরকারি অনুমোদন নিয়ে মানবদেহে পরীক্ষামূলকভাবে কাজ শুরু করবে। তার সাফল্য এখনও পুরোপুরি আসেনি। তবু তার প্রচেষ্টা অব্যাহত থাক। আমাদের মতো দেশে এই সাহস দেখানোর জন্যে তাকে সাহসী বলাই যায়। এগিয়ে যান ড. আসিফ। অভিনন্দন নামক ঠুনকো বিষয় আপনার প্রয়োজন পড়বে না নিশ্চয়ই। ফেসবুক থেকে




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : info@amadernotunshomoy.com