• প্রচ্ছদ » প্রথম পাতা » [১]দেশে ফেরা ৭৮ শতাংশ কর্মীর বিদেশে পাওনা রয়ে গেছে [২] গড়ে একেকজনের ক্ষতি ১,৭৫,০০০ টাকা


[১]দেশে ফেরা ৭৮ শতাংশ কর্মীর বিদেশে পাওনা রয়ে গেছে [২] গড়ে একেকজনের ক্ষতি ১,৭৫,০০০ টাকা

আমাদের নতুন সময় : 11/07/2020

কূটনৈতিক প্রতিবেদক : [৩] কোভিড-১৯ সময়ে শ্রম গ্রহণকারী দেশগুলো অভিবাসীদের প্রত্যাবর্তনে বাধ্য করাসহ তাদের প্রাপ্য মজুরি এবং অন্যান্য সম্পদ থেকে বঞ্চিত করেছে। [৪] রিফিউজি অ্যান্ড মাইগ্রেটরি মুভমেন্ট রিসার্চ ইউনিট গবেষণা বলছে, গত তিনমাসে ফিরে আসা ৫০ জন অভিবাসীর তিন চতুর্থাংশকে রাস্তাঘাট, দোকান থেকে পুলিশ তুলে নিয়ে ডিটেনশন ক্যাম্পে প্রেরণ করেছে। [৫] এক দশমাংশ স্ব-ইচ্ছায় ফিরে এসেছে এবং বাকিরা ছুটিতে এসেছে। সাক্ষাৎকারীদের ২৬ শতাংশের ওই দেশে কোনো দেনা-পাওনা নেই।
[৬] রামরু মনে করে, ইতিপূর্বেও গন্তব্য দেশে অভিবাসীর প্রতি মজুরি চুরিসহ যেসব অন্যায় হয়েছে, কোভিড-১৯ মহামারিতে তার মাত্রা বহুগুণে ছাড়িয়ে গেছে। এটি বন্ধে সরকার, সিভিল সমাজের পাশাপাশি দাতাগোষ্ঠী ও আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠান সমূহের বিশেষ নজর দেওয়া প্রয়োজন।
[৭] শ্রম গ্রহণকারী দেশের সরকারের সঙ্গে যোগাযোগ করে ফিরে আসা অভিবাসীদের ডাটাবেইজ, প্রাপ্য নিশ্চিতসহ ভবিষ্যতে যেন আবার যেতে পারে সেক্ষেত্রে মিশনগুলোর দায়িত্বের ওপর গুরুত্ব দিয়েছেন তারা। [৮] মাইগ্রেশন ফোরাম এশিয়ার সমন্বয়কারী উইলিয়ম গয়েজ বলেন, যেকোনো দেশ থেকে লোক ফেরত আনার আগে বাংলাদেশ মিশনের কর্মকর্তারা কোনো পাওনা থাকলে সেটা জেনে অভিবাসীদের কাছ থেকে তা আদায়ের জন্য পাওয়ার অব এ্যাটর্নি নিয়ে তা আদায় করে দিতে পারেন। সম্পাদনা: ইকবাল খান




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]