• প্রচ্ছদ » প্রথম পাতা » [১]তিস্তা ব্যারেজ এলাকায় রেড অ্যালার্ট [২]৬ লাখ মানুষ পানিবন্দি [৩]সিলেট ও সুনামগঞ্জের ১৭ উপজেলার যোগাযোগ ব্যবস্থা ভেঙে পড়েছে


[১]তিস্তা ব্যারেজ এলাকায় রেড অ্যালার্ট [২]৬ লাখ মানুষ পানিবন্দি [৩]সিলেট ও সুনামগঞ্জের ১৭ উপজেলার যোগাযোগ ব্যবস্থা ভেঙে পড়েছে

আমাদের নতুন সময় : 14/07/2020

মুরাদ হাসান :[৪] টানা বর্ষণ ও উজানের ঢলে নদ-নদীর পানি বাড়তে থাকায় বন্যা পরিস্থিতির ব্যাপক অবনতি হয়েছে। গতকালও প্লাবিত হয়েছে নতুন নতুন এলাকা। [৫] নীলফামারীতে সর্বকালের রেকর্ড ভঙ্গ করেছে তিস্তা নদীর পানিপ্রবাহ। নীলফামারীর ডালিয়ায় তিস্তা ব্যারাজ পয়েন্টে সোমবার বেলা ১১টায় নদীর পানি বিপৎসীমার ৪৪ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। রাতে তিস্তা ব্যারাজ এলাকা ও এর আশপাশ এলাকায় রেড অ্যালার্ট জারি করেছে পানি উন্নয়ন বোর্ড।[৬] কুড়িগ্রামে ধরলা, ব্রহ্মপূত্র তিস্তা নদ-নদীর পানি বিপদসীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হওয়ায় ৪ শতাধিক চর ও নি¤œাঞ্চলের গ্রামগুলি প্লাবিত হয়েছে।
[৭] লালমনিরহাটে তিস্তা ও ধরলা নদীর পানি বৃদ্ধি পেয়ে বন্যা পরিস্থিতির অবনতি হয়েছে। ফলে জেলার ৫ উপজেলায় তিস্তা ও ধরলার তীরবর্তী ও চরাঞ্চলের দেড় লক্ষাধিক মানুষ আবারও পানিবন্দি হয়ে পড়েছেন।[৮] গাইবান্ধায় ব্রহ্মপুত্র, ঘাঘট, তিস্তা ও করতোয়াসহ সবকটি নদীর পানি বৃদ্ধি অব্যহত আছে।[৯] যমুনায় পানি বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে আবারও প্লাবিত হচ্ছে সিরাজগঞ্জে নিম্নাঞ্চল। এতে ৫০ হাজার মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছেন।
[১০] সুরমা ও কুশিয়ারার পানি বৃদ্ধিতে সিলেট ও সুনামগঞ্জের ১৭ উপজেলার ৩ লক্ষাধিক মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছেন। এসব এলাকার যোগাযোগ ব্যবস্থা ভেঙে পড়েছে। সম্পাদনা : ইকবাল খান




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : info@amadernotunshomoy.com