• প্রচ্ছদ » » ৯/১১ ট্র্যাজেডি বিশ^ ইতিহাসের গতিপথ পরিবর্তন করে দিয়েছে


৯/১১ ট্র্যাজেডি বিশ^ ইতিহাসের গতিপথ পরিবর্তন করে দিয়েছে

আমাদের নতুন সময় : 13/09/2020

মিজানুর রহমান মিলন : ৯/১১। ২০০১ সালের ১১ সেপ্টেম্বর মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এক ভয়াবহ সন্ত্রাসী আক্রমণের শিকার হয়। একই দিনে একই সময়ে ৩ হাজার মানুষের প্রাণহানি হয়, যা বিশ^ ইতিহাসের অত্যন্ত দুঃখজনক একটি ঘটনা। এই একটি ঘটনাই বিশ^ ইতিহাসের গতিপথ পরিবর্তন করে দিয়েছে এবং সেই পরিবর্তনের ধারা এখনও চলমান। সেই দিনের ঘটনার পরেই মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের তৎকালীন প্রেসিডেন্ট জর্জ ডবিøউ বুশ বিশ^কে দুই ভাগে বিভক্ত করেন-সন্ত্রাসের পক্ষে ও বিপক্ষে। এর মাঝে নিরপেক্ষ অবস্থান বলে কিছুই নাই এবং এথিক্যালি থাকার কথাও নয়। প্রশ্নœ হলো মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র স্বয়ং কোনো পক্ষে ছিলো এবং আছে? ৯/১১ এ ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টারে হামলা আল কায়েদা নামের এক জঙ্গি গোষ্ঠির সদস্যদের দ্বারাই ঘটেছিলো এটা নিয়ে এখন পর্যন্ত সন্দেহের অবকাশ নাই। সেই দিনের ঘটনার পর আমেরিকা বিশ্বজুড়ে সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করেছিল এবং আজকে ২০২০ সালে এসে প্রশ্ন করা যেতেই পারে আমেরিকা কি সত্যি সেদিন সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করেছিল? নাকি আমেরিকার যুদ্ধবাজেরা এই হামলাকে উপজীব্য করে নিজেদের এজেন্ডা বাস্তবায়নে সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে যুদ্ধ শুধু ¯েøাগান হিসেবে ব্যবহার করেছিলো? ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টারে যে ১৯জন সন্ত্রাসী হামলা করেছিল তাদের ১৫ জনই ছিল সৌদি আরবের নাগরিক, ২ জন ছিল আরব আমিরাতের। আল কায়েদা ও তালেবানের উত্থানের পিছনে যে রাজনৈতিক ও ধর্মীয় মতাদর্শ কাজ করেছে তাহলো সৌদি আরবের ওহাবি মতাদর্শ। আফগানিস্তান থেকে সোভিয়েত উৎখাত করতে আমেরিকা এই মতাদর্শকে কাজে লাগিয়ে আল কায়েদা ও তালেবানের জন্ম দিয়েছে। তখন থেকে এখন পর্যন্ত সৌদি আরব ও আরবের রাজতান্ত্রিক শাসকেরা বিশে^ জঙ্গিবাদ বিস্তারের জন্য নানাভাবে অর্থায়ন করে যাচ্ছে। টাইম ম্যাগাজিন এই নিয়ে লিখেছে ‘সৌদি অর্থে বিশ^ব্যাপী জঙ্গীবাদ’। সোভিয়েত উৎখাত করে তালেবানরা যখন আফগানিস্তানের ক্ষমতা দখল করলো তখন তালেবান সরকারকে বিশে^র মাত্র তিনটি দেশ স্বীকৃতি দিয়েছিলো-সৌদি আরব, আরব আমিরাত ও পাকিস্তান। অথচ মধ্যপ্রাচ্যে ইসরায়েলের পরেই সৌদি আরব ও আরব আমিরাতের সাথে আমেরিকার নিখুত দহরম মহরম সম্পর্ক। শুধু তাই নয় ইসরায়েলের সাথে আর পরকীয়া নয় এখন এই দুই আরব দেশের সাথে বিয়ে পড়াতে ব্যাস্ত আমেরিকা।এখানে একটি ঘটনা উল্লেখ না করলেই নয়- ৯/১১ এর ট্রাজেডির দুইদিন আগে আফগানিস্তানে তালেবানবিরোধী মূল নায়ক পানসিরের সিংহ আহমেদ শাহ মাসুদকে হত্যা করা হয়। ধারণা করা হয় এটা ছিল মার্কিন ষড়যন্ত্রের ফল। ৯/১১ এর ট্র্যাজেডির পর আমেরিকার নিওকনেরা সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে যুদ্ধের আড়ালে রেজিম চেঞ্জ নামে দেশে দেশে নারকীয় হত্যাযজ্ঞ শুরু করলো। বলি হলো আফগানিস্তান, ইরাক, সিরিয়া, লিবিয়া ও ইয়েমেনের লাখ লাখ মানুষ। ইরাক ও সিরিয়া যুদ্ধের ফল হিসেবে উত্থান হল নতুন নতুন ভয়ঙ্কর জঙ্গিগোষ্ঠীর-আইসিস, আল নুশরা ইত্যাদি। সিরিয়ার আসাদ সরকার উৎখাতে এবং ইরাকের দখল দারিত্ব দীর্ঘায়িত করতে জন্ম দেওয়া হল আইসিস ও আল নুশরাসহ আরো ভয়ঙ্কর কিছু জঙ্গি গোষ্ঠীর। ইয়েমেনের হুথিদের দমন করতে সেখানেও সৌদি আরব ও আরব আমিরাতের সহযোগিতায় আল কায়েদাকে সহায়তা করেই যাচ্ছে আমেরিকা। আবার আলকায়েদাসহ বিভিন্নœ জঙ্গীগোষ্ঠি দমনের অজুহাতে এসব দেশগুলোতে আমেরিকা নিজের অনাকাক্সিক্ষত উপস্থিতির বৈধতা আদায় করে নিচ্ছে। ৯/১১ এর ট্রাজেডিকে সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে যুদ্ধ হিসাবে নয় বরং মার্কিন সা¤্রাজ্যবাদ বিরোধী শাসকদের উৎখাতের জন্য দেশে দেশে মার্কিন আগ্রাসন, হামলা ও দখল দারিত্বকে বৈধতা দেওয়ার জন্যই আমেরিকা শুধু টুল হিসেবে ব্যবহার করেছে। সাম্প্রতিককালে ট্রাম্প যেমনটি বলেছেন, পেন্টাগনের কর্মকর্তাগণ এবং সামরিক শিল্পের মালিকেরা অস্ত্র বিক্রির জন্যই নতুন নতুন যুদ্ধের আয়োজন করেন। ফেসবুক থেকে




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : info@amadernotunshomoy.com