• প্রচ্ছদ » » চাকরিতে বয়স বাড়ানোর বিষয়ে সরকারের যেহেতু প্রতিশ্রæতি ছিলো, কাজেই এখন সবার জন্য তা পুনর্বিবেচনা করতে পারে


চাকরিতে বয়স বাড়ানোর বিষয়ে সরকারের যেহেতু প্রতিশ্রæতি ছিলো, কাজেই এখন সবার জন্য তা পুনর্বিবেচনা করতে পারে

আমাদের নতুন সময় : 17/09/2020

শরিফুল হাসান : করোনাভাইরাস পরিস্থিতির কারণে ক্ষতিগ্রস্ত প্রার্থীদের সরকারি চাকরিতে প্রবেশের ক্ষেত্রে বয়সে পাঁচ মাসের ছাড় পাবেন সরকারি চাকরিপ্রার্থীরা। কিন্তু বিষয়টা আমি ঠিক পরিষ্কার হলাম না। গণমাধ্যম বলছে, গত ২৫ মার্চ যাদের বয়স ৩০ বছর পূর্ণ হয়েছে তারা পরবর্তী পাঁচ মাস সরকারি চাকরির আবেদন করতে পারবেন। তার মানে আগস্ট পর্যন্ত বিজ্ঞপ্তিগুলোতে তারা আবেদন করতে পারবেন। আমার প্রশ্ন হলো এতে লাভ কী হবে? আগস্ট পর্যন্ত কী আসলে কোনো নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি হয়েছে? বিসিএস কিংবা রাষ্ট্রায়াত্ত¡ ব্যাংক, কোনোটারই তো কোনো নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি এই সময়ে সেভাবে হয়নি। তাহলে লাভটা কী হলো? ধরেন আগামী অক্টোবর না নভেম্বর মাসে কোনো নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি হলো। যার বয়স মার্চে শেষ হয়েছে তিনি তাতে কী করে আবেদন করবেন? আবার ধরেন যার বয়স জুলাইয়ে ৩০ হয়েছে তার ক্ষেত্রেই বা কী হবে? তিনি কী পাঁচ মাসের কোন সুবিধা পাবেন? আবার নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি দিলেই তো হবে না। পরীক্ষাও নিতে হবে। তরুণেরা তো সব পরীক্ষার দিকে চেয়ে আছে। আামি বলবো, বিষয়গুলো ঠিক পরিস্কার হলো না।
করোনার কারণে যেহেতু বিসিএস থেকে আরম্ভ করে সব নিয়োগ পরীক্ষা বা বিজ্ঞপ্তি বন্ধ সরকার একটা সাধারণ নিয়ম করতে পারে। সেটা হলো, সব প্রতিষ্ঠানকে এখন নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি দিতে বলতে পারে। এরপর বলা যেতে পারে এই বছর যতো নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি হবে তাতে ২০২০ সালের ২৫ মার্চ থেকে আগস্টের ২৫ সেপ্টম্বর পর্যন্ত যাদের বয়স ৩০ হয়েছে তারা সবাই আবেদন করতে পারবে। পাশাপাশি সব নিয়োগ পরীক্ষাগুলো শুরু হওয়া উচিত। আবার যদি ন্যায্যতার কথা বলেন, যাদের বয়সে মার্চে ৩০ হয়েছে তারাই শুধু ক্ষতিগ্রস্ত নাকি যার বয়স ২৭-২৮ তাদের জীবন থেকেও ছয়মাস হারিয়ে গেছে। ইকুইটি বা ন্যায্যতার কথা বললে, সবার দিকটা বিবেচনায় নিয়ে সরকারের সিদ্ধান্ত নিয়ে উচিত। আমি মনে করি চাকরিতে বয়স বাড়ানোর বিষয়ে সরকারের যেহেতু একটা প্রতিশ্রæতি ছিল, কাজেই সরকার এখন সবার জন্য সেটি পুনর্বিবেচনা করতে পারে। ফেসবুক থেকে




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]