• প্রচ্ছদ » প্রথম পাতা » [১]১৮ জুন থেকে ২ কোটি মানুষ সরকারি হেল্প লাইনে চিকিৎসা পরামর্শ নিয়েছেন [২]সাড়ে তিনলাখ লোক চিকিৎসাসেবা নিয়েছেন টেলিমেডিসিনে


[১]১৮ জুন থেকে ২ কোটি মানুষ সরকারি হেল্প লাইনে চিকিৎসা পরামর্শ নিয়েছেন [২]সাড়ে তিনলাখ লোক চিকিৎসাসেবা নিয়েছেন টেলিমেডিসিনে

আমাদের নতুন সময় : 19/09/2020

লাইজুল ইসলাম : [২] করোনাভাইরাস অতিমারি শুরু হবার পর ১৮ জুন সরকারিভাবে দেশব্যাপী টেলিহেল্থ সেন্টার কাজ শুরুর পর থেকে এ সেবা নিয়েছেন উল্লেখিতরা। একইসঙ্গে স্বাস্থ্য বাতায়ন ১৬২৬৩, ৩৩৩ ও আইইডিসিআর ১০৬৫৫ নাম্বারে কোভিড সংক্রান্ত যেকোনো প্রাথমিক পরামর্শ দিয়ে যাচ্ছে। [৩]এপর্যন্ত স্বাস্থ্যবাতায়ন ১৬২৬৩ নাম্বারে ফোন কল এসেছে ৭৯,৩৮,৫৪৪টি। হেল্প লাইন ৩৩৩ নম্বরে কল এসেছে ১,২৩,৫৭,২৯২টি। আইইডিসিআরের হেল্প লাইন ১০৬৫৫ নম্বরে কল এসেছে ৩,২৩,৩১০ টি। টেলিমেডিসিনে ফোন এসেছে ও ফোন করা হয়েছে ৩,৫৫,৮৯৭টি। এর মধ্যে মেডিকেল এসেসমেন্ট করা হয়েছে ১,৪১,৬৪৫টি। রোগী ফলোআপ করতে কল করা হয়েছে ১,৩৭,৬৩০টি। রোগী ফলোআপ কল করেছে ৭৬, ৬২২টি।[৪] স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মিডিয়া সেন্টারের বলছে, আইইডিসিআরে ৫০ জন চিকিৎসক, স্বাস্থ্য বাতায়ন ১৬২৬৩ হেল্প লাইনে প্রতি শিফটে ২৫ করে প্রতিদিন নূন্যতম ৭০ জন চিকিৎসক, ৩৩৩ হেল্প লাইনে ১৫ জন স্বেচ্ছাসেবী কাজ করেন। এছাড়া টেলিমেডিসিনে সকাল ৯টা থেকে রাত ১০ টা পর্যন্ত ৩৫ জন করে ৭০ জন চিকিৎসক কাজ করেন। [৫] সৌদি প্রবাসী ৮ হাজারের বেশি বাংলাদেশিকে টেলিমেডিসিন সেবা দিয়েছে প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের ৭০ জন চিকিৎসক। [৬] দেশের বিভিন্ন বেসরকারি কল সেন্টার স্বাস্থ্যসেবা দিয়ে থাকে। প্রায় ৩০টির বেশি বেসরকারি প্রতিষ্ঠান টেলিফোনে সেবা দিচ্ছে।[৭] টেলিমেডিসিনে স্বেচ্ছাসেবী হিসেবে কর্মরত ইউনাইটেড হাসপাতালের চিকিৎসক ডা. রাইহান নিজাম জানান, এপ্রিল-মে-জুন মাসে প্রতিদিন ১৫-২০ টি কল আসলেও এখন আসছে ১০টি কল। খুব বেশি খারাপ রোগিদের ক্ষেত্রে হাসপাতালে যেতে বলতাম। আর যারা বাসায় থেকে চিকিৎসা করার মত তাদের ব্যবস্থাপত্র দিতাম। সম্পাদনা: ইকবাল খান




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]