• প্রচ্ছদ » শেষ পাতা » [১]মহাকাশে রোবট পাঠাচ্ছে চীন, পৃথিবীর কক্ষপথে বসে স্যাটেলাইট নিয়ন্ত্রণ করবে, নজর রাখবে গ্রহাণুদের ওপর


[১]মহাকাশে রোবট পাঠাচ্ছে চীন, পৃথিবীর কক্ষপথে বসে স্যাটেলাইট নিয়ন্ত্রণ করবে, নজর রাখবে গ্রহাণুদের ওপর

আমাদের নতুন সময় : 29/09/2020

রাশিদুল ইসলাম : [২] চীনা মহাকাশবিজ্ঞানীরা বলছেন, নামেই মাইনিং রোবট, তবে এর কাজ নজরদারি চালানো। ৩০ গ্রাম ওজনের স্পেসক্রাফ্ট নাম নিও-১। বিশ্বে প্রথম ‘অ্যাস্টেরয়েড মাইনিং রোবট‘ মহাকাশে উৎক্ষেপণ করা হবে আগামী নভেম্বর মাসে। চীনের লং মার্চ রকেটে চাপিয়ে একে পৃথিবীর কক্ষে পাঠিয়ে দেওয়া হবে। ৫০০ কিলোমিটার কক্ষপথে বসে এই রোবট স্যাটেলাইট বা কৃত্রিম উপগ্রহদের হাল হকিকত দেখবে। সিনহুয়া।[৩] রোবটটি তৈরি করেছে বেজিংয়ের একটি বেসরকারি কোম্পানি অরিজিন স্পেস। এর কর্ণধার ইউ তিয়ানহং বলেছেন, এই রোবটের কাজ ইনটেলিজেন্স স্যাটেলাইটগুলো ঠিকঠাক কাজ করছে কিনা তার তদারকি করা। তাছাড়া পৃথিবীর অরবিটে যে সব কৃত্রিম উপগ্রহ রয়েছে তাদের নজরে রাখা। মহাজাগতিক বস্তুদের নিয়ে গবেষণাও করবে এই রোবট।[৪] ইতোমধ্যেই মঙ্গলে রকেট পাঠিয়েছে চীন। হাইনান দ্বীপ থেকে লং মার্চ ৫ রকেটে চাপিয়ে ‘তিয়ানওয়েন ১’ মঙ্গলযানকে মহাকাশে পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে। পাঁচ টন ওজনের মহাকাশযান মঙ্গলে পৌঁছবে আগামী বছর ফেব্রুয়ারিতে। লং মার্চ ৫ ওয়াই৪ কেরিয়ার চীনের সবচেয়ে বড় রকেট। তিয়ানওয়েন মিশনের জন্য এই রকেটকেই বেছে নেওয়া হয়েছে। স্পেসক্রাফ্টের রকেট যাতে মঙ্গলের মাটিতে নিরাপদে ল্যান্ড করতে পারে তার জন্য সব ব্যবস্থাই রাখা হয়েছে। প্যারাশুট, রেট্রোরকেট, এয়ারব্যাগ রয়েছে ল্যান্ডারে। মঙ্গলের মাটিতে অবতরণের পরেই কাজ শুরু করবে রোভার। এর সোলার প্যানেল সৌরশক্তিতে কাজ করবে। মঙ্গলের মাটির রাসায়নিক বিশ্লেষণ করে তথ্য পাঠাবে গ্রাউন্ড স্টেশনে। সম্পাদনা: ইকবাল খান




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]