• প্রচ্ছদ » প্রথম পাতা » [১]সিলেট এমসি কলেজে দলবদ্ধ ধর্ষণের ঘটনায় বিচার বিভাগীয় তদন্তের নির্দেশ [২]কর্তৃপক্ষের অবহেলায় হাইকোর্টের ক্ষোভ [৩]অধ্যক্ষ ও হোস্টেল সুপারের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে রুল জারি


[১]সিলেট এমসি কলেজে দলবদ্ধ ধর্ষণের ঘটনায় বিচার বিভাগীয় তদন্তের নির্দেশ [২]কর্তৃপক্ষের অবহেলায় হাইকোর্টের ক্ষোভ [৩]অধ্যক্ষ ও হোস্টেল সুপারের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে রুল জারি

আমাদের নতুন সময় : 30/09/2020

নূর মোহাম্মদ : [৪] তদন্ত করে আগামী ১৫ দিনের মধ্যে প্রতিবেদন দাখিল করতে বলা হয়েছে। সিলেটের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক, সিলেটের চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট ও অতিরিক্ত ডেপুটি কমিশনারকে ঘটনার তদন্ত করতে বলা হয়েছে। ঘটনার শিকার নববধূ, মামলার বাদী, এমসি কলেজের অধ্যক্ষ, হোস্টেল সুপার, ওই ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শীসহ সবার জবানবন্দি নিতে বলা হয়েছে কমিটিকে। [৫] মঙ্গলবার বিচারপতি মো. মজিবুর রহমান মিয়া ও বিচারপতি মহি উদ্দিন শামীমের বেঞ্চ এই আদেশ দেন। একইসঙ্গে দলবদ্ধ ধর্ষণের শিকার তরুণীকে রক্ষায় অবহেলা ও অছাত্রদের কলেজে অবস্থান বিষয়ে নীরবতার জন্য অধ্যক্ষ ও হোস্টেল সুপারের বিরুদ্ধে কেন শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হবে না, তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেছেন আদালত। সেই সঙ্গে হাইকোর্ট আগামী ১৮ অক্টোবর এ বিষয়ে পরবর্তী আদেশের জন্য দিন ধার্য করেছেন।
[৬] এর আগে সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী মো.মেসবাহ উদ্দিন বিষয়টি আদালতের নজরে আনেন। শুনানিতে আদালত বলেন, এই ঘটনা পুরো জাতিকে লজ্জিত করেছে। সন্ধ্যায় ঘটনার পর পরই অধ্যক্ষ ও হোস্টেল সুপারকে বিষয়টি অবহিত করা হয়। কিন্তু অধ্যক্ষ ও হোস্টেল সুপার রাত সাড়ে ১২টায় ঘটনাস্থলে গিয়েছেন। সেখানে অপরাধীদের মদদ দেওয়া হয়েছে এবং পালিয়ে যেতে সাহায্য করা হয়েছে। পুলিশ সঙ্গে সঙ্গে এগিয়ে আসলেও অধ্যক্ষ ৩ ঘণ্টা পর তাদেরকে ভেতরে যাবার অনুমতি দেন। দুইজন প্রহরীকে বরখাস্ত করা আইওয়াশ। এসব করে দায় এড়ানো যাবে না। সম্পাদনা: ইকবার খান




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]