• প্রচ্ছদ » » দুনিয়ার সকল পেশাজীবীর মতন আমরা যারা ঘরকন্যা করি, তাদেরও প্রায় প্রচÐ মেন্টাল স্ট্রেস আসে


দুনিয়ার সকল পেশাজীবীর মতন আমরা যারা ঘরকন্যা করি, তাদেরও প্রায় প্রচÐ মেন্টাল স্ট্রেস আসে

আমাদের নতুন সময় : 14/10/2020

শাওন মাহমুদ : মেন্টাল স্ট্রেস, ডিপ্রেশন বাংলায় যার অর্থ মানসিক চাপ। সেখান থেকেই জন্ম নেয় বিষণœতা। পৃথিবীর সকল পেশাজীবীর মতন আমরা যারা ঘরকন্যা করি তাদেরও প্রায় প্রচÐ মেন্টাল স্ট্রেস আসে। আমরা শুধু কর্মক্ষেত্রের বা সেখানকার কারো দোষ বা চাপের কথা উল্লেখ করতে পারি না। অফিসের মতন মাসের বেতন বকেয়া পরেছে বা বাড়ছে না, একটুও দোষারোপ করতে পারি না।
ঈদ পার্বণে বোনাসের ধার ধারি না। শাড়ির ভাঁজে থাকা সঞ্চিত বোনাসে উৎসব করি। অন্যান্য পেশাজীবীর মতন তাতে ঘরকন্যার বছর ভিত্তিক এসিআরের পাতায় পদোন্নতির জন্য এক লাইনও লেখা হয় না। ঘরকন্যাদের তাতে অবশ্য কিচ্ছুই এসে যায় না। ঘরে সাহায্যকারী আসেনি। বাড়ি গেছে কবে আসবে জানে না কারো। বাইরে রাখা ময়লার ডিব্বাটা সুইপার নেয়নি। ছাদের কাপড় বিকেলে আনতে হবে। সন্ধ্যায় নাস্তা দিতে হবে চায়ের সাথে। হায় ফ্রিজে তো কোন মাছ নেই। দুপুরের জন্য শুধু করল্লা আছে। পেপারের বিল নিতে আসলো না এতোদিনেও। সকালের জন্য পাউরুটি আনা হয়নি। ডিম ছাড়া টিফিন হবে কি করে। বাজার নেই। ডিম ভুনা, আলু ভর্তা আর ঘন ডাল। কাউকে আমরা বুঝতেও দিই না।
আমাদেরও মানসিক চাপ হয়। বিষণœতা আসে। মাঝে মধ্যে প্রচন্ড আকারে ভর করে। শুধুমাত্র ঘরকন্যা করি বলি আমরা কখনও কর্পোরেট ধারায় বলতে পারি না – আমি ডিপ্রেসড্ বা স্ট্রেসড্। কিচ্ছু ভালো লাগছে না। স্ট্রেস ফ্রি হলিডেতে যেতে হবে। নিঃশ্বাস নিতে। গতবার বালী গিয়েছি, এবার পাতায়া। মাসের শেষটা সীমিত আয়ে চলা ঘরকন্যাদের আমি দেবী নামে ডাকি। আমাদের স্ট্রেস ফ্রি হলিডে লাগে না। পেট পুরে বাসার সবাই খেয়ে ভাতঘুমে গেলে কুটকুট করে ঘরের বাদ বাকি কাজগুলো শেষ করতেই সব চাপ ধুয়ে মুছে চলে যায়। প্রিয়জনের পাশে গিয়ে পনেরো মিনিট চোখ বন্ধ করে ছোট ভাতঘুম। সবাই উঠবার আগে উঠে একটু সূঁইসুতোর বুনন। আহা। জীবন সুন্দর।




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]