• প্রচ্ছদ » প্রথম পাতা » [১]ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল শেষেই আসবে গ্লোব বায়োটেকের কোভিড ভ্যাকসিন [২]প্রয়োজন দ্রুত অনুমোদন ও সরকারের পৃষ্ঠপোষকতা: ড. আসিফ


[১]ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল শেষেই আসবে গ্লোব বায়োটেকের কোভিড ভ্যাকসিন [২]প্রয়োজন দ্রুত অনুমোদন ও সরকারের পৃষ্ঠপোষকতা: ড. আসিফ

আমাদের নতুন সময় : 17/10/2020

ম শরীফ শাওন: [৩] গ্লোব বায়োটেক লিমিটেড রিসার্চ এ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট বিভাগের প্রধান ড. আসিফ মাহমুদ বলেন, যেসকল ভ্যাকসিনের নাম শোনা যাচ্ছে, যেমন মডার্না, ফাইজার ও জনসন এন্ড জনসন, তারা হিউম্যান ট্রায়লের ফেইজ-৩ তে আছে। আমরা ফেইজ-১ শুরু করতে যাচ্ছি। তবে দ্রুত অনুমোদন পেলে, তাদের উৎপাদিত ভ্যাকসিন বাংলাদেশে আসার আগেই আমদের ভ্যাকসিন বাজারে আনা সম্ভব হবে।
[৪] তিনি আরও বলেন, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার তালিকায় এমন অনেক ভ্যাকসিনের নাম আছে যারা অ্যানিমেল ট্রায়ালও শুরু করেনি। সরকারের অনুরোধের ভিত্তিতেই তারা তালিকাভুক্ত করেন। আমাদের ভ্যাকসিন ব্যানকোভিড সেই তালিকায় নেই।
[৬] প্রতিষ্ঠানটির সিইও ড. কাকন নাগ বলেন, ভ্যাকসিন সাধারণ ফার্মেসিতে বিক্রি করা সম্ভব নয়। এটা সরকারের কর্মসূচির মাধ্যমে বিতরণ করতে হয়। ইতোমধ্যে আমরা স্বরাষ্ট্র, পররাষ্ট্র ও অর্থসহ সংশ্লিষ্ট সকল মন্ত্রণালয়কে অবগতির জন্য চিঠি দিয়েছি। প্রধানমন্ত্রী বরাবর চিঠি পাঠিয়েছি।
[৭] সম্প্রতি ব্যানকোভিড ভ্যাকসিনের হিউম্যান ট্রায়ালসহ বাকি প্রক্রিয়া সম্পন্ন করতে গ্লোব বায়োটেকের সঙ্গে সিআরও হিসেবে আন্তর্জাতিক উদরাময় গবেষণা কেন্দ্র বাংলাদেশের(আইসিডিডিআরবি) চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। চুক্তি অনুযায়ী আইসিডিডিআরবি ভ্যাকসিনটির অ্যানিমেল ট্রায়াল ও ডেভেলপমেন্ট ডাটা পর্যবেক্ষণ করে হিউম্যান ডাটার প্রটোকল তৈরি এবং অনুমোদনের জন্য বিএমআরসিতে আবেদন করবে। পরে হিউম্যান ট্রায়ালের স্বেচ্ছাসেবক সংগ্রহ করে ভ্যাকসিনেশন প্রক্রিয়ার মধ্যমে ৩টি ফেইজ সম্পন্ন করে বাজারজাতে ঔষধ প্রশাসনের অনুমতি চাইবে। [৮] আইসিডিডিআরবি’র সিআরও দলের গবেষক বলেন, গ্লোব বায়োটেকের সকল বায়োপণ্য ট্রায়ালের বিষয়ে চুক্তি হয়েছে। বর্তমানে পরিস্থিতিতে ভ্যাকসিনের ট্রায়াল প্রাধান্য পাবে। তবে এটা সময়সাপেক্ষ ব্যাপার। সম্পাদনা : ইকবাল খান, ইসমাঈল ইমু




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]