• প্রচ্ছদ » » আমরা যতোদিন বাঁচবো যেন অভিনয় ছাড়াই বাঁচতে পারি


আমরা যতোদিন বাঁচবো যেন অভিনয় ছাড়াই বাঁচতে পারি

আমাদের নতুন সময় : 26/10/2020

ব্রাত্য রাইসু : বেশিরভাগ মানুষই তাদের বয়স্ক বাপ-মায়ের সঙ্গে নিজেদের মতো কইরা মিশে না। বয়স্ক বাপ-মারা যেন কবর থিকা তাদের সঙ্গে কথা বলতেছে, এইরকম একটা মরণোত্তর ভক্তি-শ্রদ্ধার অভিনয় তারা চালাইতে থাকে। অর্থাৎ এইভাবে ছেলেমেয়েরা বাপ-মায়ের মৃত্যুর অপেক্ষা করতে থাকে। এই নির্দয়গুলো বাবা-মাকে ইহকালের আনন্দ দিতে রাজি না। ইহকালেই তারা বাপ-মায়ের জন্যে পরকাল তৈরি করে। আমি এই জিনিস ঘৃণা করি। আমরা কে কয়দিন বাঁচবো আমরা কি তা জানি? কিন্তু আমরা যতোদিন বাঁচবো যেন অভিনয় ছাড়াই বাঁচতে পারি। সকলের জন্যেই যেন ভালোবাসা, বিরক্তি, শ্রদ্ধা, স্নেহ স্বাভাবিক থাকে। জীবিত অবস্থায়ই ঘরের মধ্যে বাপ-মাকে কফিন পরাইয়া রাইখেন না। তাতে তারা বুঝতে পারে আপনারা তাদের মৃত্যুর অপেক্ষা করতেছেন। অন্তত তারা যে আপনাদের আগে মরবে এই ব্যাপারে আপনাদের প্রস্তুতির কথা তাদেরকে জানান দিচ্ছেন কেন? ফেসবুক থেকে




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]