• প্রচ্ছদ » প্রথম পাতা » [১]বাংলাদেশের অর্থনৈতিক উত্থানে প্রমাণিত ভারতের এনআরসির ভাষ্য গুরুত্বহীণ


[১]বাংলাদেশের অর্থনৈতিক উত্থানে প্রমাণিত ভারতের এনআরসির ভাষ্য গুরুত্বহীণ

আমাদের নতুন সময় : 27/10/2020

মাছুম বিল্লাহ: [২] ‘বাংলাদেশ অনেক গরিব এবং এর ফলে কাজের সন্ধানে বাংলাদেশিরা সীমান্ত অতিক্রম করে ভারতে অবৈধ অভিবাসী হচ্ছে’- এমন ধারণা থেকে ভারতের আসামে প্রকৃত নাগরিকদের সনাক্ত করতে সর্বোচ্চ আদালতের নির্দেশনায় মোদি সরকার জাতীয় নাগরিক তালিকা (এনআরসি) করে। [৩] ভারতের গণমাধ্যম স্ক্রল ইনে ‘হ্যাজ বাংলাদেশিস ইকোনোমিক রাইজ দ্য উইন্ড আউট অব দ্য এনআরসি ন্যারেটিভ’ শিরোনামে গত ২৩ অক্টোবর এক প্রতিবেদন প্রকাশ করে। সেখানে বলা হয়েছে, এনআরসির একটি সঠিক জবাব সম্ভবত নিহিত রয়েছে ১৩ অক্টোবর আন্তর্জাতিক অর্থ তহবিলের (আইএমএফ) একটি অর্থনৈতিক প্রক্ষেপণে। এতে দেখানো হয়েছে, ২০২০ সালে ভারতের মাথাপিছু অভ্যন্তরীণ উৎপাদন বাংলাদেশের চেয়ে কম হবে।
[৪] বাংলাদেশ-ভারতের মধ্যে যদি এটিই তুলনা হয়, তবে আসামের ক্ষেত্রে কী হতে পারে তা বের করা কঠিন কিছু নয়। কারণ এটি হলো ভারতের সবচেয়ে গরিব রাজ্যগুলোর একটি। বর্তমানে বাংলাদেশের মাথাপিছু জিডিপি আসামের চেয়ে দেড়গুণ বেশি।
[৫] আসামের অধিবাসির চেয়ে বাংলাদেশের গড় আয়ু ১০ বছরেও বেশি। আসামের শিশু মৃত্যু হার ৪১, বাংলাদেশে ২৬। বাংলাদেশে মাতৃকালীন মৃত্যু হার ১৭৩, আসামে ২১৫। ফলে রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত অর্থনৈতিক কারণে অভিবাসনের যে হিসাবটি দেয়া হয়েছিল, তা এনআরসিতে পাওয়া যায়নি। [৬] উল্লেখ্য, গত বছর প্রকাশিত এনআরসির চূড়ান্ত তালিকায় প্রায় ১৯ অবৈধ অভিবাসী সনাক্ত হয়। এর মধ্যে ১৪ লাখই হিন্দু। বাংলাদেশ সীমান্ত-সংলগ্ন আসামের মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ তিনটি জেলায় এনআরসি তালিকা থেকে তুলনামূলকভাবে কম লোক বাদ পড়েছে। সম্পাদনা: ইকবাল খান, শাহানুজ্জামান টিটু




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]