• প্রচ্ছদ » গুরুত্বপূর্ণ সংবাদ » [১]সেন্টমার্টিনকে নিজেদের মানচিত্রে উপস্থাপন করে আবারও গায়ে পড়ে ঝগড়া করতে চাচ্ছে মিয়ানমার [২]এর আগেও এ ধরনের চেষ্টার প্রতিবাদ জানানো হয়েছে: পররাষ্ট্রসচিব মাসুদ


[১]সেন্টমার্টিনকে নিজেদের মানচিত্রে উপস্থাপন করে আবারও গায়ে পড়ে ঝগড়া করতে চাচ্ছে মিয়ানমার [২]এর আগেও এ ধরনের চেষ্টার প্রতিবাদ জানানো হয়েছে: পররাষ্ট্রসচিব মাসুদ

আমাদের নতুন সময় : 27/10/2020

তরিকুল ইসলাম: [৩] ইউরোপীয় ইউনিয়নের সাইট কোপারনিকাসের মানচিত্রে সেন্টমার্টিন দ্বীপকে বাংলাদেশের সমুদ্রসীমার অর্থনৈতিক অঞ্চলের বাইরে মিয়ানমারের অংশ হিসেবে দেখানো হয়েছে।
[৪] মিয়ানমারের রাষ্ট্রদূত উ লুইন ও’কে গত বুধবার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে তলব করে এ সম্পর্কে জানতে চাওয়া হয়েছে। [৫] পররাষ্ট্রসচিব মাসুদ বিন মোমেন বলেছেন, তথ্যের সূত্রটা আমরা জানতে চাই। যেই এটার জন্য দায়ী হোক না কেন, আমরা তা মোকাবেলা করব।
[৬] এর আগেও এ ধরনের চেষ্টার প্রতিবাদ জানানো হয়েছে। [৭] ২০১৮ সালের অক্টোবরে প্রথম দফায় দেশটির সরকারি ওয়েবসাইটে দাবি করার পর সে সময়ও মিয়ানমারের রাষ্ট্রদূতকে তলব করে প্রতিবাদ জানিয়ে কূটনৈতিক পত্র দিয়েছিল বাংলাদেশ। [৮] ২০১৯ ফেব্রুয়ারিতেও সেন্টমার্টিন দ্বীপকে নিজেদের অংশ হিসেবে চিহ্নিত করেছিল মিয়ানমার।
[৯] সে সময় বারবার এই ঘটনা অনিচ্ছাকৃত মন্তব্য করে দুঃখ প্রকাশ করেন দেশটির রাষ্ট্রদূত। এরপর মিয়ানমার মানচিত্র সংশোধন করে নেয়। কিন্তু পরবর্তী সময়ে আবার একই ঘটনার পুনরাবৃত্তি ঘটায়। [১০] পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সূত্র বলছে, ২০১২ সালের মার্চে সমুদ্রসীমা নিয়ে মিয়ানমারের বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক ট্রাইব্যুনালে করা মামলার রায়ে সেন্টমার্টিনকে বাংলাদেশের অংশ হিসেবেই চিহ্নিত করা হয়েছে। তাই এ ব্যাপারে কোনো বিতর্ক থাকতে পারে না। [১১] পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সচিব (সমুদ্র বিষয়ক) অবসরপ্রাপ্ত রিয়াল এ্যাডমিরাল মো. খুরশেদ আলম বলেছেন, মিয়ানমার সরকার গায়ে পড়ে ঝগড়া করতে চাচ্ছে। মিয়ানমার ইচ্ছাকৃতভাবে বাংলাদেশের সেন্ট মার্টিনের কিছু অংশ বৈশ্বিক অঙ্গণে নিজেদের বলে প্রচার করছে, যা খুবই আপত্তিজনক। সম্পাদনা: ইকবাল খান




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]