• প্রচ্ছদ » প্রথম পাতা » [১]সরকারের ‘নো মাস্ক নো সার্ভিস’ নির্দেশনা মানছে না কেউ [২]প্রশাসনের যথাযথ উদ্যোগ ও সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানগুলোকে ফ্রি মাস্ক বিতরণ কর্মসূচি পালনের পরামর্শ জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের


[১]সরকারের ‘নো মাস্ক নো সার্ভিস’ নির্দেশনা মানছে না কেউ [২]প্রশাসনের যথাযথ উদ্যোগ ও সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানগুলোকে ফ্রি মাস্ক বিতরণ কর্মসূচি পালনের পরামর্শ জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের

আমাদের নতুন সময় : 28/10/2020

ম ভূঁইয়া আশিক : [৩] সরকারি নির্দেশনা অনুযায়ী, সামাজিক জমায়েতে সবার মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক। তবে মাস্ক ছাড়াই বাজারগুলোতে চলছে কেনাবেচা। সেবাগ্রহীতা তো নয়ই, পণ্যের বিক্রেতারাও পরছেন না মাস্ক। গণপরিবহণে প্রায় মাস্ক ছাড়া চলাচল করছেন যাত্রীরা। [৪] সরকারি-বেসরকারি অফিস, হাসপাতাল ও বাজারসহ বিভিন্ন স্থানে ‘নো মাস্ক নো সার্ভিস’ সাইন বোর্ড থাকার কথা থাকলেও সব জায়গায় তা নজরে পড়ছে না। [৫] এ প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর চিকিৎসক ডা. এবিএম আবদুল্লাহ বলেন, শুধু আইন করলেই হবে না, আইনের প্রয়োগ করতে হবে। জরিমানা করা যেতে পারে। ভিজিল্যান্স টিমও গঠন করতে পারে জনসচেতনতার জন্য। সব স্তরের মানুষকে সম্পৃক্ত করে প্রচারণা চালাতে হবে। [৬] অণুজীববিজ্ঞানী ড. সমীর কুমার সাহার মতে, করোনায় আমি আক্রান্ত হলে আপনিও হবেন। আপনি আক্রান্ত হলে আরেকজন সংক্রমিত হবে। করোনার থাবা থেকে বাঁচতে হলে নিজেদের সচেতন হতেই হবে। করোনার ভয়াবহতা সম্পর্কে একজন আরেকজনকে বলতে হবে। [৭] বিএসএমএমইউ’র লিভার বিভাগের চেয়ারম্যান ডা. মামুন আল মাহতাব স্বপ্নীল বলেন, রমনা কালি মন্দির কর্তৃপক্ষ পূজায় ১ লাখ মাস্ক কিনে রেখেছিলো, যিনিই মাস্ক ছাড়া উৎসবে এসেছিলেন, তাকেই মাস্ক পরিয়ে দেওয়া হয়েছিলো। ভ্যাকসিনের জন্য আমরা শতকোটি টাকা খরচ করতে পারবো, ফ্রি একটা মাস্ক দিতে পারবো না? ফ্রি মাস্ক সরবরাহ করে সব প্রতিষ্ঠানই একটি সামাজিক দায়িত্ব পালন করতে পারে। সম্পাদনা: ইকবাল খান




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]