[১]যারা স্বাধীনতা চায়নি, বাংলাদেশ সামনে এগিয়ে গেলে তাদের খুব কষ্ট হয়, এটা আমরা বুঝি: প্রধানমন্ত্রী

আমাদের নতুন সময় : 02/11/2020

বাশার নূরু, তাপসী রাবেয়া: [২] শেখ হাসিনা আরও বলেন, একটা ভালো পরিবেশকে নষ্ট করে সংঘাত তৈরির জন্য কেউ কেউ বক্তব্য দেবে। আর তাদের ধরলে সেটা হবে বাকস্বাধীনতা হরণ করা? এটা তো হয় না।
[৩] কিন্তু একটা শ্রেণি তো আছেই, যাদের চিন্তাটাই হলো এই ধরণের। অর্থাৎ সমাজকে ক্ষতিগ্রস্ত করা বা সরকারের ক্ষতি করা। মানুষের জীবন নিয়ে তাদের কোনো চিন্তাই নেই। তাদের অন্য একটা উদ্দেশ্য থাকে। ষড়যন্ত্র করে তারা যখন সফল করতে পারে না, তখনই সমালোচনামুখর হয়, এটাই হচ্ছে সব থেকে বাস্তব কথা।
[৪] প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ এখন একটি ভালো জায়গায় আছে, আরও ভালো জায়গায় যাবে। বাংলাদেশের অর্থনীতি এখন ভালো। আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলো যা ভবিষ্যদ্বাণী করছে, সেটা নাকি ঠিক হচ্ছে না।
[৫] তিনি বলেন, আমরা ভিক্ষুক হয়ে থাকব, অন্যের মুখাপেক্ষী হয়ে থাকব, তাদের কাছে চাইব এটাই তো তারা চাইবে। কিন্তু আমরা তো তা থাকব না। [৬] সোমবার সকালে মন্ত্রিপরিষদ বৈঠকের সূচনা বক্তব্যে প্রধানমন্ত্রী এ কথা বলেন। [৭] মন্ত্রিসভার বৈঠকের পর সচিবালয়ে সংবাদ সম্মেলনে মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম জানান, ২০১৮-১৯ অর্থবছরে দেশে দারিদ্র্যের হার ছিল ২০ দশমিক ৮ শতাংশ, চরম দারিদ্র্যের হার ছিল ১২ দশমিক ৯ শতাংশ। ২০১৯-২০ অর্থবছরে দারিদ্র্যের হার কমে হয়েছে ২০ দশমিক ৫ শতাংশ, অতি দারিদ্র্যের হার কমে হয়েছে ১০ দশমিক ৫ শতাংশ।
[৮] গত অর্থবছরে করোনাভাইরাসের সার্বিক প্রভাব এখনই অনুধাবন করা যাবে না জানিয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, করোনার কারণে সার্বিক ক্ষতি আগামি বছর বোঝা যাবে। সম্পাদনা: ইকবাল খান




সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক ঃ নাঈমুল ইসলাম খান

১৩২৭, তেজগাঁও শিল্প এলাকা (তৃতীয় তলা) ঢাকা ১২০৮, বাংলাদেশ। ( প্রগতির মোড় থেকে উত্তর দিকে)
ই- মেইল : [email protected]